আজ শনিবার, ২১ জুলাই ২০১৮ ইং, ০৬ শ্রাবণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



সন্দ্বীপ সহ সারাদেশে তীব্র ভূমিকম্প

Published on 13 April 2016 | 2: 09 pm

ভূমিকম্পে হালিশহর ফইল্যাতলী বাজারের চৌধুরী প্লাজার সামনের দৃশ্য- (ছবি : কাজী শিহাব উদ্দীন)

সোনালী নিউজ প্রতিবেদক :: রাজধানী ঢাকা, চট্টগ্রাম, সন্দ্বীপ সহ দেশের বিভিন্ন স্থানে তীব্র ভূমিকম্প অনুভূত হয়েছে। বুধবার সন্ধ্যা ৭টা ৫৭ মিনিটে এ ভূকম্পন অনুভূত হয়।

তবে ভূ-কম্পনের উৎপত্তিস্থল ও রিখটার স্কেলে এর মাত্রা এখনো জানা যায়নি।

এদিকে গত ৫ এপ্রিলও দেশের বিভিন্ন স্থানে মৃদু ভূকম্পন অনুভূত হয়।

ভূমিকম্পে কাঁপল গোটা দেশ, আতংক

শক্তিশালী ভূমিকম্পে কেঁপে উঠল রাজধানী ঢাকাসহ গোটা দেশ। উৎপত্তিস্থল মিয়ানমারে রিখটার স্কেলে এ ভূমিকম্পের মাত্রা ছিল ৬.৯।

বুধবার রাত ৭ টা ৫৫ মিনিটে এ ভূমিকম্প অনুভূত হয়। এতে আতংকিত লোকজন বাসাবাড়ি ও বিভিন্ন ভবন ছেড়ে আশপাশের ফাঁকা জায়গায় নেমে আসে।

যুক্তরাষ্ট্রের ভূকম্পন পর্যবেক্ষণ সংস্থা ইউএসজিএসের ওয়েবসাইটের তথ্য অনুযায়ী, ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল ছিল মিয়ানমারের মাওলাইক থেকে ৭৪ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বে।

সংস্থাটি জানায়, ইন্ডিয়া-ইউরোশিয়া প্লেটের ঘর্ষণে এ ভূমিকম্প উৎপন্ন হয়। এর কেন্দ্র ছিল ভূপৃষ্ঠের ১৩৪ কিলোমিটার গভীরে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স বলছে, মিয়ানমারে রিখটার স্কেলে ৭ মাত্রার ভূমিকম্প আঘাত হেনেছে।

এছাড়া বাংলাদেশের আবহাওয়া অধিদফতরের পরিচালক শামসুদ্দিন আহমেদ জানান, উৎপত্তিস্থলে ভূমিকম্পের মাত্রা ছিল ৭ দশমিক ২।

বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা থেকে ৪২০ কিলোমিটার পূর্ব দিকে মিয়ানমারে ছিল এ ভূমিক্পের উৎপত্তিস্থল। শক্তিশালী এ ভূমিকম্পে ঢাকার ভবনগুলো দুলতে থাকে।

এ সময় আতংকিত লোকজন বাসাবাড়ি ও বিভিন্ন ভবন থেকে রাস্তায় বেরিয়ে আসে। উদ্বিগ্ন অনেককেই মোবাইলফোনে আত্মীয়-স্বজনদের খোঁজ-খবর নিতে দেখা যায়।

তবে মিয়ানমারের নিকটবর্তী হওয়ায় বাংলাদেশের বাণিজ্যিক রাজধানী হিসেবে খ্যাত চট্টগ্রাম এবং কুমিল্লা অঞ্চলে এ ভূমিকম্প বেশি অনুভূত হয়।

পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত, নেপাল ও পাকিস্তানেও ভূমিকম্প অনুভূত হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে।

এখন পর্যন্ত এ ভূমিকম্পে ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি।


এখানে খুজুন


আরও পড়ুন