আজ শনিবার, ২১ জুলাই ২০১৮ ইং, ০৬ শ্রাবণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



ভুটানের রাজমাতা-রাজকুমারী ঢাকায়

Published on 14 March 2016 | 11: 36 am

ভুটানের রাজমাতা শেরিং পেম ওয়াংচুক পাঁচ দিনের সফরে বাংলাদেশে এসেছেন। তার সফরসঙ্গী হিসেবে রয়েছেন তার মেয়ে প্রিন্সেস চিমি ইয়াংযম ওয়াংচুক।

সোমবার ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে তাকে স্বাগত জানান, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব (দ্বিপক্ষীয় ও কনস্যুলার) মিজানুর রহমান।

ভুটানের সাবেক রাজা জিগমে সিংগে ওয়াংচুকের তৃতীয় স্ত্রী ও বর্তমান রাজা জিগমে খেসার নামগায়েল ওয়াংচুকের মা শেরিং ভুটানের যুব উন্নয়নে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ইয়ুথ ডেভেলপমেন্ট ফান্ডের (ওয়াইডিএফ) প্রেসিডেন্ট। আর মেয়ে প্রিন্সেস চিমি ইয়াংযম ওয়াংচুক সংগঠনটির ভাইস প্রেসিডেন্ট।

বাংলাদেশ সফরে ওয়াইডিএফের পাঁচ সদস্যের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন রাজমাতা।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, সফরকালে ভুটানের রাজপরিবারের এই দুই সদস্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন।

এছাড়াও, তারা বাংলাদেশে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড বিশেষ করে এনজিও খাতের বিভিন্ন প্রকল্প পরিদর্শন করবেন বলে জানা গেছে।

ভুটানের চতুর্থ রাজা জিগমে সিঙ্গে ওয়াংচুকের চার পতœীর একজন শেরিং পেম ওয়াংচুক। জিগমে সিঙ্গে ওয়াংচুক ২০০৬ সালে ক্ষমতা পরিত্যাগ করার আগ পর্যন্ত তিনি দেশটির রাজা ছিলেন। তারপর ভুটানের বর্তমান রাজা খেসার নেমিয়েল ওয়াংচুক ক্ষমতা গ্রহণ করেন। আশি ছিমি হলেন রাজমাতা শেরিং পেমের কন্যা। আশি ছিমি ভুটানের বর্তমান রাজার সৎ বোন।

রাজমাতা শেরিং পেম ও রাজকুমারী আশি ছিমি উভয়েই বিভিন্ন উন্নয়নমূলক, সামাজিক ও দাতব্য কর্মকাণ্ডে জড়িত আছেন। বিশেষ করে ১৯৮০ সালে জন্ম নেয়া রাজকুমারী আশি ছিমি যুব সমাজের সঙ্গে কাজ করার বিষয়ে বিশেষভাবে আগ্রহী।

জানা গেছে, ভুটানের রাজপরিবারের এই দুই সদস্য তাদের নিজেদের বিশেষ আগ্রহ নিয়ে এই সফরে আসছেন। ফলে এটিকে আধা রাষ্ট্রীয় সফর বলা হচ্ছে। পররাষ্ট্র সচিব মো. শহীদুল হক আজ সকালে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অতিথিদের স্বাগত জানাবেন। ভুটানের রাজপরিবারের দুই সদস্যের সফরের প্রস্তুতি হিসেবে রোববার বিকালে ঢাকায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে একটি প্রস্তুতি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

জানা গেছে, ভুটানের রাজমাতা ও রাজকুমারী ব্র্যাকের একটি প্রকল্প পরিদর্শন করবেন। তারা বেক্সিমকোর একটি শিল্প কারখানা পরিদর্শন করবেন। এছাড়াও, ধানমণ্ডির ৩২ নম্বরে অবস্থিত বঙ্গবন্ধু জাদুঘর, শাহবাগে অবস্থিত জাতীয় জাদুঘর পরিদর্শন করবেন।

ভুটানে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত জিষ্ণু রায় চৌধুরী  বলেন, বাংলাদেশ উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড বিশেষ করে এনজিও ও বেসরকারি খাতে অনেক এগিয়ে যাচ্ছে। এই বিষয়গুলো সম্পর্কে জানার আগ্রহ থেকেই ভুটানের রাজপরিবারের দুই সদস্য বাংলাদেশ সফরে আসছেন। তারা এগুলো দেখে এবং জেনে নিজেদের দেশে তা অনুসরণ করার চেষ্টা করবেন।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ ও ভুটানের মধ্যে চমৎকার বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক রয়েছে। দক্ষিণ এশিয়ার এই দেশটি প্রথম বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দিয়েছিল। ভুটানের রাজপরিবারের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পরিবারের নিবিড় সম্পর্ক রয়েছে।


এখানে খুজুন


আরও পড়ুন