আজ মঙ্গলবার, ১৭ জুলাই ২০১৮ ইং, ০২ শ্রাবণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



“আপনি খান। বিল দেবে আপনার নাতি।”

Published on 29 February 2016 | 11: 23 am

সোহেল মাহমুদ ::
রেস্তোরাঁর সামনে এমন লেখা থাকলে কার না ভরা পেটেও খেতে ইচ্ছে না করে! মন্টুও মিয়া তাই করলেন। নিজের টেবিলে জড়ো করলেন দামী সব খাবার। সেইসঙ্গে করলেন সাবাড়ও।

কী স্বস্তি, শান্তি আর উচ্ছ্বাস!
ছিলো লম্বা ঢেঁকুরও!! বাদ যাচ্ছিল না নিজের মোবাইল থেকে একে ওকে ফোন করে “বীরত্বগাঁথা”র বয়ান। দাঁতের ফাঁক থেকে আটকে থাকা খাবার তাড়াতে তাড়াতে রেস্তোরাঁ থেকে বের হতে যাবেন তিনি, এমন সময় বেয়ারার হাঁক, “সামনে ১,৪০০/-“। সামনে পেছনে পলক দুয়েক দেখে রেস্তোরাঁ থেকে সোজা বেরিয়ে গেলেন মন্টু মিয়া।

কয়েক পা এগুতে কারোর হাত যেন ঘাড়ে তার। “এই যে, বিল না দিয়া কই যান?”- তাকে খাবার দেয়া বেয়ারার প্রশ্ন। টেনে হেঁচড়ে মন্টু মিয়াকে নিয়ে আসা হল রেস্তোরাঁর ক্যাশ কাউন্টারের সামনে। ততোক্ষণে অগ্নিমূর্তি তার, “মশকরা করার মানুষ পান না? এখানে লেখছেন কি আর করেন কি?”- ম্যানেজারের কাছে জানতে চাইলেন তিনি।

“এখানে যা লেখা আছে, ঠিকতো আছে!” – ম্যানেজারের উত্তর।
“তাহলে, আমি যে খাইলাম সেটার বিল চাইলেন কেনো?”- ক্ষুব্ধ মন্টু মিয়া।
‘এই বিলতো আপনার না, আপনার দাদার। আপনারটাতো ঠিকই আপনার নাতি দিবো” – ম্যানেজারের হাসি।

“নাতি”রা দেবে ভেবে যারা এখন লুটেপুটে খাচ্ছেন, তাদের “দাদা”দের বিল দেয়ার সময় কিন্তু যে কোনসময়।


এখানে খুজুন


আরও পড়ুন