আজ শুক্রবার, ২৫ মে ২০১৮ ইং, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



মহিউদ্দিনের বিরুদ্ধে ১৬ থানায় জিডি

Published on 19 February 2016 | 5: 58 am

 

প্রকাশ্য জনসভায় হত্যার হুমকি দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করে নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর বিরুদ্ধে নগরীর ১৬ থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) পাঠিয়েছেন সাংসদ এম এ লতিফ। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে ইমেইলে নগরীর ১৬ থানায় জিডি পাঠিয়েছেন এম এ লতিফ। জিডি’র আবেদনে এম এ লতিফের স্বাক্ষর রয়েছে। এর মধ্যে বন্দর থানা পুলিশ লতিফের জিডি গ্রহণ করে নথিভুক্ত করেছে। জিডি নম্বর৮৭১। জিডির আবেদনে এম এ লতিফ লিখেছেন, ১৫ ফেব্রুয়ারি নগরীর লালদিঘি ময়দানে নাগরিক মঞ্চ আয়োজিত এক সমাবেশে এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী তাকে অবাঞ্চিত ঘোষণা করে চলাফেরায় সতর্ক করেন। মহিউদ্দিন এও বলেছেন, যুব সমাজ কিংবা ব্যক্তিবিশেষ আমাকে আক্রমণ করতে পারে। এতে আমার মৃত্যুও হতে পারে। আমার মৃত্যুর জন্য তাকে অর্থাৎ মহিউদ্দিন চৌধুরীকে আসামি করারও তিনি ঘোষণা দেন। মহিউদ্দিন চৌধুরী ও তার অনুসারীদের প্রকাশ্য হুমকির কারণে লতিফ জীবননাশের আশংকা করছেন বলে জিডির আবেদনে উল্লেখ করেছেন।

জিডির আবেদনে লতিফ আরো উল্লেখ করেন, আমাকে প্রতিরোধসহ হত্যার নির্দেশনা দিয়ে এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী তার অনুসারীদেরকে আমার পেছনে লেলিয়ে দিয়ে হত্যার দায়দায়িত্ব নিজের কাঁধে নেয়ার আশ্বাস দিয়ে আমার জীবনকে হুমকির মুখে ফেলে দিয়েছেন। মহিউদ্দিন ও তার অনুসারীদের অব্যাহত হুমকির মুখে আমি ও আমার পরিবার নিরাপত্তাহীনতা বোধ করছি। নগর পুলিশের একাধিক সূত্রের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, জিডি গ্রহণের আবেদন পাবার পর একে একে সব ওসি’ই নির্দেশনা চেয়ে পুলিশ কমিশনারের দ্বারস্থ হন। শীর্ষ পর্যায় থেকে সুনির্দিষ্ট আদেশ ছাড়া জিডি গ্রহণ না করার কথা বলা হয়। সর্বশেষ সিদ্ধান্ত অনুযায়ী,যেহেতু লতিফ বন্দর এলাকার সাংসদ, বন্দর থানাতেই শুধু জিডি গ্রহণ করা হয়। বন্দর থানার ওসি একেএম মহিউদ্দিন সেলিম বলেন, এমপি সাহেবের জিডি গ্রহণ করে তদন্তের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।


Advertisement

আরও পড়ুন