আজ বুধবার, ১৮ জুলাই ২০১৮ ইং, ০৩ শ্রাবণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



অর্থনীতির ‘সিম্বল’ হয়ে উঠবে ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার

Published on 28 January 2016 | 3: 28 am

ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার জাতীয় অর্থনীতির ‘সিম্বল’ হয়ে উঠবে বলে মন্তব্য করেছেন সংসদ সদস্য ও চট্টগ্রাম চেম্বারের সাবেক সভাপতি এমএ লতিফ। ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার চট্টগ্রাম চেম্বারের আইকন প্রজেক্ট উল্লেখ করে তিনি বলেন, বিশ্বের প্রায় দেশে ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার আছে। এখানে বসেই একজন ব্যবসায়ী সব ধরনের কাজ করতে পারবেন।

শনিবার (৩০ জানুয়ারি) ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার উদ্বোধন ও চট্টগ্রাম চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি’র শতবর্ষ উদযাপন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

অনুষ্ঠান সম্পর্কে অবহিত করতে বুধবার দুপুরে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি। ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারের বঙ্গবন্ধু কনফারেন্স হলে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার নির্মাণ প্রকল্পের অতীত স্মরণ করে এমএ লতিফ বলেন, আমরা দায়িত্ব নেওয়ার আরো ১০ বছর আগে তৎকালীন চেম্বার নেতারা প্রকল্পটি হাতে নেয়। এটি বাস্তবায়নের জন্য ইয়াং ওয়ানের সঙ্গে চুক্তিও করেছিল। চুক্তি অনুযায়ী ইয়াং ওয়ান নকশা প্রণয়ন করে দিবে। বিনিময়ে একটি টাওয়ার তাদের দিতে হবে। তিনি বলেন, ইয়াং ওয়ান একটি টাওয়ার নিয়ে যাবে অথচ কোন অর্থায়ন করবে না। তাই আমরা বোর্ড সভায় এ সিদ্ধান্ত বাতিল করে নতুন পরিকল্পনা গ্রহণ করি।

বিভিন্ন ব্যাংকের কাছে ঋণ চেয়েও পাওয়া যায়নি। বরং তাদের জন্য সময় ক্ষেপন হয়েছে। পরে ধীরে ধীরে প্রায় ১৫০ কোটি টাকা ব্যায়ে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হয়। লাদেশে ট্যুরিজম থেকে ২০ মিলিয়ন ডলার আয় করা সম্ভব উল্লেখ করে তিনি বলেন, পর্যটন করপোরেশনের কর্মকর্তারা বসে বসে বেতন নিচ্ছেন। অথচ এর উন্নয়নে কোন কাজ করছে না। এমনকি কতটি পর্যটন কেন্দ্র আছে সে তালিকাও করতে পারেনি।

চট্টগ্রাম চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলম জানান, ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার উদ্বোধন ও শতবর্ষ উদযাপন উপলক্ষ্যে পাঁচদিনের কর্মসূচি হাতে নেওয়া হয়েছে। বুধবার সকালে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার সম্মেলন কেন্দ্র উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে এ কর্মসূচি শুরু হয়।

বাংলাদেশে উৎপাদিত সব পণ্য একই জায়গায় এনে মার্কেটিং করাই ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারের মূল উদ্দেশ্য উল্লেখ করে মাহবুবুল আলম বলেন, এখানে বিশ্ব বাণিজ্যের সব ধরনের সুযোগ সুবিধা থাকবে।

ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারের একটি ফ্লোরে পণ্য প্রদর্শনীর জন্য ১৩২টি প্রদর্শনী বক্স রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, এসব পণ্য অনলাইনে প্রদর্শিত হবে। বিশ্বের যে কোন প্রান্ত থেকে ক্রেতারা পছন্দের পণ্য অনলাইনে কিনতে পারবেন।

এছাড়া এখানে আসলে বিক্রেতার সঙ্গে সরাসরি কথা বলতে পারবেন। এজন্য সভাকক্ষ রয়েছে। থাকবে আধুনিক হোটেল। হেলিপ্যাডের ব্যবস্থাও রাখা হয়েছে। অর্থাৎ
একজন ব্যবসায়ী থাকা-খাওয়া-মিটিং থেকে শুরু করে সব কিছুই এখানে করে ফিরতে পারবেন।

মাহবুবুল আলম জানান, বৃহস্পতিবার বিকেলে চট্টগ্রাম বন্দর স্টেডিয়ামে চট্টগ্রামের ইতিহাস ঐতিহ্য তুলে ধরে লাইট এন্ড সাউন্ড অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন ভূমি প্রতিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ।

শনিবার ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার উদ্বোধন ও শতবর্ষ উদযাপন মূল অনুষ্ঠান। এতে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, বাণিজ্য মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন।

রোববার রেডিসন ব্লু বেভিউতে অনুষ্ঠিত হবে বিজনেস সামিট। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন তুর্কিস্তানের অনারারি কনস্যুল একে খান গ্রুপের এমডি সালাউদ্দিন কাশেম খান। আলোচক হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বাংলাদেশে কানাডার হাইকমিশনার পিয়ারে লারামি, আইএফসি প্রতিনিধি ওলেগ তোনকোনোজেনকভ, এশিয় উন্নয়ন ব্যাংকের উপ-কান্ট্রি ডিরেক্টর হিতোশী আরা, ভারতের বেঙ্গল চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি’র সভাপতি শুতানু ঘোষ, এফবিসিসিআই সভাপতি আব্দুল মাতলুব আহমাদ। ওইদিন বিকেলে অনুষ্ঠিত ইয়ুথ কনফারেন্সে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করবেন ডেইলি স্টার পত্রিকার সম্পাদক মাহফুজ আনাম। সাবেক মূখ্য সচিব আবদুল করিম ও শ্রীলঙ্কার ফেডারেশন অব চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি সভাপতি শারথ প্রেমাতুঙ্গা কাহাপালারচি উপস্থিত থাকবেন।

সোমবার (১ ফেব্রুয়ারি) রাঙ্গামাটিতে অনুষ্ঠিত হবে আন্তর্জাতিক ট্যুরিজম সামিট। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন। বিকেল ৩টায় আন্তর্জাতিক ট্যুরিজম সামিটের দ্বিতীয় পর্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন নৌমন্ত্রী শাজাহান খান। দেশি-বিদেশি অতিথিদের কাছে দেশের সম্ভাবনাময় পর্যটন শিল্পের বিকাশ সাধনে চট্টগ্রাম চেম্বার এ সামিটের আয়োজন করেছে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে চেম্বারের সিনিয়র সহসভাপতি মো.নুরুন নেওয়াজ সেলিম, সহসভাপতি সৈয়দ জামাল আহমেদ, পরিচালক মাহফুজুল হক শাহ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।


এখানে খুজুন


আরও পড়ুন