আজ শনিবার, ২১ জুলাই ২০১৮ ইং, ০৬ শ্রাবণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



আসামির সঙ্গে বৈঠক : প্রসিকিউটর ড. তুরিন আফরোজকে প্রত্যাহার

Published on 10 May 2018 | 6: 09 pm

মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে করা মামলার এক আসামির সঙ্গে বৈঠক করায় যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর ড. তুরিন আফরোজকে প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে। প্রসিকিউটর জেয়াদ আল মালুম সাংবাদিকদের গতকাল বুধবার এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, গত ৭ মে তুরিন আফরোজকে এনএসআইয়ের সাবেক মহাপরিচালক ওয়াহিদুল হকের মামলা থেকে অব্যাহতি দেন চিফ প্রসিকিউটর। গত ৮ মে তাকে প্রসিকিউশনের সকল মামলা থেকে বিরত থাকতে বলা হয়েছে। এ বিষয়ে চিফ প্রসিকিউটরের দুইটি চিঠি এবং তুরিন আফরোজের সঙ্গে আসামির কথোপকথনের সিডিসহ যাবতীয় নথি আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।
এ বিষয়ে তুরিন আফরোজ সংবাদ মাধ্যমকে কোনো বক্তব্য না দিলেও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে তিনি এ বিষয়ে নিজের অবস্থান তুলে ধরে একটি বক্তব্য দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, আমাকে নিয়ে একটি অতি উত্সাহী দৈনিক পত্রিকাতে একটি বিভ্রান্তিকর তথ্য প্রকাশিত হলে সোশ্যাল মিডিয়াতে তা ভাইরাল করে আমাকে নিয়ে নানা কুত্সা রটনা করা হচ্ছে। এটাও বলা হচ্ছে যে, আমাকে প্রসিকিউটর পদ থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে। এ বিষয়ে আমার সুস্পষ্ট বক্তব্য: আমি এখনো আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর পদে বহাল আছি। আমাকে কেউ বরখাস্ত করেনি। ট্রাইব্যুনাল আইনের ৮(২) ধারা অনুযায়ী ট্রাইব্যুনালের একজন প্রসিকিউটরের একজন তদন্ত কর্মকর্তা হিসেব কাজ করার এখতিয়ার রয়েছে। সুতরাং যে কোনো মামলায় তদন্ত করার এখতিয়ার আমার আছে। আর তদন্ত করতে গেলে নানা রকম কৌশল অবলম্বন করতে হয়। সুতরাং আমি তদন্তের স্বার্থে যে কোনো প্রয়োজনীয় কৌশল গ্রহণ করতে পারি। ট্রাইব্যুনালে আমি এই পর্যন্ত প্রসিকিউটর হিসেবে যা কিছুই করেছি তা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ অবহিত ছিলেন। আমাকে নিয়ে সাম্প্রতিক সময়ে যে অভিযোগ তোলা হয়েছে তা সত্য নয়। যেহেতু বিষয়টি এখন ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ তদন্ত করে দেখছেন তাই সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে এই মুহূর্তে বিষয়টি নিয়ে আমি কোনো মন্তব্য করতে চাই না। তদন্ত শেষ হলে আমি আমার বক্তব্য সর্বসম্মুখে প্রকাশ করবো। আশা করি সেই পর্যন্ত আমার শুভাকাঙ্ক্ষী ও সমালোচকগণ ধৈর্য ধরে অপেক্ষা করবেন।
৮ মে প্রসিকিউশনের দেওয়া চিঠিতে উল্লেখ করা হয়, এনএসআইয়ের সাবেক ডিজি ওয়াহিদুল হকের বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের তদন্ত চলছে। গত বছরের ১৯ নভেম্বর গুলশানের একটি রেস্টুরেন্টে তুরিন আফরোজ আসামি ওয়াহিদুল হকের সঙ্গে বৈঠক করেন। প্রসঙ্গত ওয়াহিদুল হককে গত ২৪ এপ্রিল গ্রেফতার করার পর তাকে কারাগারে পাঠায় ট্রাইব্যুনাল।


এখানে খুজুন


আরও পড়ুন