আজ সোমবার, ১৮ জুন ২০১৮ ইং, ০৪ আষাঢ় ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রাণিবিদ্যা বিভাগের প্রথম পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত

Published on 19 March 2018 | 2: 44 pm

 

১৬ মার্চ ২০১৮ “চিটাগাং ইউনিভার্সিটি অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশন অব জুলজী”’র উদ্দ্যোগে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রাণিবিদ্যা বিভাগের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের প্রথম পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান উদযাপিত হয়ে গেলো। পুরো অনুষ্ঠানটি দুইটি পর্বে সাজানো ছিল। ১ম পর্বে ছিল চবি ক্যাম্পাসে বর্ণাঢ্য র‌্যালী, বেলুন ও পায়রা উড়ানোর মাধ্যমে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন ঘোষণা। নীল আকাশে পায়রা অবমুক্তকরণ এবং বেলুন উড়ায়ে অনুষ্ঠানটির উদ্বোধন ঘোষণা করেন চবিপ্রাবি’র প্রতিষ্ঠাতা বিভাগীয় প্রধান এবং সভাপতি প্রফেসর ড. শফিক হায়দার চৌদুরী্ ।

এর পরপরই পবিত্র ধর্ম গ্রন্থ থেকে পাঠ এবং CUAAZ এর সদস্য সচিব হাজী মোহম্মদ মহিউদ্দীন কর্তৃক স্বাগত ভাষনের মাধ্যমে চ.বি. জীব বিজ্ঞান অনুষদের অডিটরিয়ামে শুরু হয় ১ম পর্বের অনুষ্ঠান স্মৃতি চারণ। স্মৃতি চারণে অংশ নেন প্রফেসর (অব:) রায়হানা বেগম (১ম ব্যাচ), কাস্টম কমিশনার (অব;) শাহাবুদ্দীন নাগরী (২য় ব্যাচ),  অধ্যাপক (অব:) মফিজুর রহমান (২য় ব্যাচ), অধাপক (অব:) জহরলাল ভট্টাচার্য্য, (২য় ব্যাচ),  অধ্যক্ষ অঞ্জনা চৌধুরী (১৮ তম ব্যাচ) এবং ১ম থেকে ৩৯ ব্যাচের  আরো অনেকে। নামাজ ও মধ্যাহ্ন ভোজের বিরতির পরও বিকাল ৪টা পর্যন্ত স্মৃতি চারণ চলে।

১ম পর্বের অনুষ্ঠানে বিভিন্ন বিষয়ে অবদানের জন্য CUAAZ এর পক্ষ থেকে সম্মাননা প্রদান করা হয়।

সম্মাননা পান য়থাক্রমে প্রফেসর ড. শফিক হায়দার চৌধুরী (চবিপ্রবি’র প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি হিসেবে), প্রফেসর ড. মোহাম্মদ আলী আজাদী (হালদা নদীর ফাউন্ডার গবেষক হিসেবে), রেফায়েত হোসেন, অঞ্জনা রায় চৌধুরী, আবুল কাসেম টিপু এবং আফতাব হোসেন (দক্ষ সংগঠক হিসেবে) ।

CUAAZ এর ৬ জন দাতা সদস্যকে ও সম্মাননা প্রদান করা হয়। দাতা সদস্য হিসেবে যারা সম্মাননা পেলেন তাঁরা হলেন -মোহাম্মদ মহিউদ্দীন (১৪ তম ব্যাচ), জান্নতুস সাফা (১৮তম ব্যাচ), প্রফেসর ড. মোহাম্মদ আলী আজাদী (১ম ব্যাচ), সহযোগী অধ্যাপক রাশেদা চৌধুরী (১৭ তম ব্যাচ), হাসান মাহমুদ (১৫ তম ব্যাচ)  এবং শামসুন নাহার বেগম দীপি (১৮ তম ব্যাচ)।

১ম পর্বে আলোচনায় অংশ নিয়েছেন ও মঞ্চে উপবিষ্ট ছিলেন প্রধান অতিথি চ:বি: প্রাণিবিদ্যা বিভাগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি প্রফেসর ড. শফিক হায়দার চৌধুরী, বিশেষ অতিথি চ.বি.’র রেজিষ্ট্রার প্রফেসর ড. কামরুল হুদা, প্রফেসর ড. জি.এম. রওশন উল্লাহ, প্রফেসরে ড. বদরুল আমিন ভুইঁয়া, প্রফেসর বেনজীর আহমদ, প্রফেসর ড. মুনিরা নাসিরউদ্দীন, প্রফেসর ড. ইসমাইল মিয়া, কাস্টম কমিশনার (অব;) শাহাবুদ্দীন নাগরী (যুগ্ম আহবায়ক কুয়াজ), এবং অধ্যাপক (অব;) সুনীল চন্দ্র পাল (যুগ্ম আহবায়ক কুয়াজ)।

বিকাল ৪.১৫ মি. এ বক্তব্যের মাধ্যমে প্রথম পর্বের পরিসমাপ্তি ঘোষণা করেন অনুষ্ঠানের সভাপতি ও কুয়াজের আহবায়ক প্রফেসর ড. মোহাম্মদ আলী আজাদী। সমগ্র অনুষ্ঠানটি সঞ্চালন করেন সহকারী অধ্যাপক জনাব আফতাব হোসেন (যুগ্ম সচিব, কুয়াজ)।

দ্বিতীয় পর্বের  অনুষ্ঠান শুরু হয় চট্টগ্রাম শহরের হোটেল রাজ এ সন্ধ্যা ৭.০০ টায়। উক্ত অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের  মাননীয় মেয়র জনাব আ.জ.ম নাছির উদ্দীন বিশেষ জরুরী কাজে ব্যস্ত থাকায় যোগদান করতে পারেননি।

২য় পর্ব স্মৃতি চারণ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে মঞ্চে উপবিষ্ট ছিলেন প্রফেসর ড. শফিক হায়দার চৌধুরী, প্রফেসর ড. জি.এম. রওশন উল্লাহ, প্রফেসর ড. বদরুল আমিন ভুইঁয়া, প্রফেসর বেনজীর আহমদ, প্রফেসর ড. মো. ফরিদ আহসান।

স্মৃতি চারণে অংশ নেন প্রফেসর প্রণব কুমার চক্রবর্তী, সহযোগী অধ্যাপক সাইফুর রহমান চৌধুরীসহ আরো অনেকে। অুনষ্ঠানটিতে সভাপতিত্ব করেন প্রফেসর ড. মোহাম্মদ আলী আজাদী (আহবায়ক কুয়াজ)।

২য় পর্বে নির্বাচন কমিশনার এবং সহকারী নির্বাচন কমিশনার যথাক্রমে প্রফেসর ড. বদরুল আমিন ভুইঁয়া এবং প্রফেসর ড. মো. ফরিদ আহসান এর পরিচালনায়  গণতান্ত্রিকভাবে সাধারণ সদস্যদের ভোটের মাধ্যমে  কুয়াজের (CUAAZ) পরবর্তী নির্বাহী পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় এবং সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদকসহ ৩৫ সদস্য বিশিষ্ট কুয়াজের ২০১৮-২০২০ সেশানের জন্য নির্বাহী পরিষদ গঠন করা হয়। এর পর বরণ্য শিল্পীদের গানের মাধ্যমে শুরু হয় সাংস্কৃতিক অনূষ্ঠান। ডিনারের মাধ্যমে ২য় পর্বের অনূষ্ঠানটি শেষ হয়।

 


এখানে খুজুন


আরও পড়ুন