আজ সোমবার, ২৫ জুন ২০১৮ ইং, ১১ আষাঢ় ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



প্রতিবাদী উত্থান

Published on 08 March 2018 | 7: 22 pm

:: নাঈম খাঁন ::
 
কাব্য লিখন প্রাচীন প্রথা
শৈল্পিক তার কথা।
একাল ও সেকালে কাব্য লিখতে
ঘেটেছে অনেক মাথা।
 
মরেও অমর জিবন অনেক
কবিতায় বসবাস।
চরনে চরনে মিশে আছে হাজার
বছরের ইতিহাস।
 
কবিতার মাঝে ঘুমিয়ে আছে
হাসি কান্নার স্মৃতি।
বাড়ায় সাহস কখনো আবার
জাগায় মনে ভীতি।
 
কবিতা সুক্ষ্ম ধার তলোয়ার
শৌর্য বীর্য শক্তি।
দিয়েছে অনেক অধিকার আর
সাম্য মৈত্রী শান্তি।
 
রনাঙ্গনে কাব্য চয়ন
বাড়ায় উত্তেজনা।
শত্রু সেনার বাঁধা পেরিয়ে
বিক্রমে জয় প্রেরনা।
 
এমন কবিতা লিখে নজরুল
স্মৃতিতে অম্লান।
তার কবিতায় কেঁপেছে বৃটিশ
যুদ্ধের ময়দান।
 
লেখনী দিয়ে এনে দিয়েছে
বাংলার স্বাধীনতা।
আমরন ছিল বিদ্রোহী দিতে
দুখিদের মানবতা।
 
আজকের কবি মত্ত শুধুই
নারীর উদাস প্রেমে।
পংক্তির মিল করতে গিয়ে
চিন্তায় যায় ঘেমে।
 
মাত্রা নাই তাল ও নাই
বুঝিনা কোন ধরন।
রীতি ছাড়াই কবিতা লেখে
অর্থহীন যার চরন।
 
তাইতো জাতি হারিয়ে ফেলেছে
কাব্যের প্রতি প্রীতি।
পংক্তির মাঝে যায় না পাওয়া
তৃপ্তি আর অনুভূতি।
 
ধরেছি কলম তৃপ্তি দিতে
সব মানুষের তরে।
লিখছি কবিতা নজরুলের ওই
সাম্যের পথ ধরে।
 
জানিনা কতোটা সফল হচ্ছে
কবিতা গুলোর মান।
কবিতা দিয়েই হতে চাই আমি
প্রতিবাদী উত্থান।


এখানে খুজুন


আরও পড়ুন