আজ বৃহঃপতিবার, ১৬ আগষ্ট ২০১৮ ইং, ০১ ভাদ্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



স্বপ্নেরা ঘর বাঁধে যেখানে সেখানে আমার প্রাণের সন্দ্বীপ টাউন

Published on 24 February 2018 | 5: 38 pm

 :: আকবর হোসেন বাচ্চু ::

অন্যরকম এক স্বপ্নের সাথে কাঠিয়েছি শুক্রবার সারাদিন, অন্যরকম অনুভূতি।
২০/২৫ বছর আগে যে মানুষ গুলো কে অনেক কাছে থেকে দেখেছি সে পুরাতন সন্দ্বীপ টাউনের আলোকিত মামুষ গুলো কে অনেকদিন পর দেখলাম চট্টগ্রাম মুসলিম হলে, সন্দ্বীপ টাউন সোসাইটি’র মহামিলনে।

আমার শৈশব কেটেছে সন্দ্বীপ টাউনে, আদালত দীঘির উত্তর পূর্ব কোনে ছিলো আমার প্রাথমিক বিদ্যাপীঠ, মোমেনা সেকান্দর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়। আর আমাদের বাসা ছিলো সোনালী ব্যাংক এর দক্ষিণ পাশে, আমাদের মূল বাড়ী পূর্ব হরিশপুর হলেও বাবার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান (ড্রেস হাউস) ও আমাদের পড়ালেখার জন্য আমরা সন্দ্বীপ টাউনে বসবাস করতাম।

সন্দ্বীপ টাউন ছিলো অনেক প্রাচীন শহর, অনেক জ্ঞানী, শিক্ষানুরাগী, ব্যবসায়ী, রাজনীতিবিদ, ইসলামি চিন্তাবিদ এর পদচারণ ছিলো সন্দ্বীপ টাউনে, আমরা শুনেছি চোখে দেখিনি, বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী মরহুম আব্দুল বাতেন সওদাগর, মরহুম মৌলবি আজিজ, মরহুম খদ্দর, মরহুম অলি আহম্মদ সওদাগর (আমার দাদা) মত বিশিষ্ট ব্যক্তিরা সন্দ্বীপ টাউন এর প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী ছিলেন।

সন্দীপ টাউনের অনেক সৃতি এখন ও ভুলতে পারিনা, বিশেষ করে ১৯৯০ সালে সম্ভবত ৬/৭ ডিসেম্বর সকালে গুম থেকে উঠে কমরেড মনিরুল হুদা বাবান ভাইয়ের স্লোগান এ এরশাদ বলো রওশন বলো কিছু রবে না রে সব শালারা বাইশা যাইবে বঙ্গোপসাগরে বা এ মাত্র খবর আইলো এরশাদ চোরা পালাই গেলো।
৩ দলীয় ছাত্র ঐক্যর নেতা মোক্তাদের মাওলা সেলিম ভাইয়ের ৫রাস্তার মোড়ে তেলের ড্রাম এর উপর ভাষণ।

কতদিন ফয়েজ স্যার এর হাতে বেতের মার খেয়েছি শুধু দেরি করে ক্লাসে যাওয়ার কারনে, ৫রাস্তার মোড়ে ক্যাপে আনোয়ার এর সমুচা, একটু সামনে বিচিত্রা সাংস্কৃতিক ফোরাম, সাগর ভাইয়ের গানের আওয়াজ অথবা কানাই দাদার নাটক এর শব্দ শুনে একটু সামনে গেলে পিপিসি ক্লাব, কাজার চৌধুরীর মোটরবাইক এর পিছনে বানর এর দুষ্টুমি দেখে আরো একটু সামনে আদালত এর সাথে জেলখানা নতুন কোন আসামি আছে দেখতে দেখতে ফয়েজ স্যার (কামাল মাস্টার) এর ক্লাস শেষ।

বিটিভির জনপ্রিয় ইংলিশ ধারাবাহিক ম্যাকগাইভার আর টারজান দেখতে গিয়ে কতবার না বাবার বকাঝকা খেয়েছি কিছু ভুলতে পারিনা।
কার্গিল মাঠে ফুটবল খেলা মানে মারামারির আগাম প্রস্তুতি, ঢাকা স্টোডিয়ামে ফুটবল খেলা আর সন্দ্বীপ টাউনে আবাহনী মোহামেডান এর ব্যানার আর মিছিল। কিন্তু ১৯৯১ এর প্রলয়ঙ্করী ঘূর্ণিঝড় এর পর সন্দীপ টাউন এর সকল প্রাণচঞ্চলতা কমতে থাকলো, অবশেষ ১৯৯৪ সালে আমাদের কে এতিম করে রাক্ষসী মেঘনা আমাদের থেকে কেরে নিলো প্রিয় সন্দ্বীপ টাউন, তবে মেঘনা আমাদের দীর্ঘ ২৫ বছর বিচ্ছিন্ন রাখলে ও আবার নতুন করে সপ্ন দেখাচ্ছে, সন্দীপ টাউন এর স্থানে এখন নতুন চর, আমরা কেনো সপ্ন দেখবো না, আমাদের সপ্ন দেখতে শুরু করেছি প্রিয় এয়ার বাংলা আনোয়ার ভাইয়ের ভাষায় আবার জমবে মেলা পুরাতন সন্দ্বীপ টাউনে।

শুক্রবার সন্দ্বীপ টাউন সোসাইটির প্রাণের মহামিলন মেলাতে সে পুরাতন মানুষ দের দেখে আবার স্বপ্ন দেখা শুরু করলাম, এয়ার বাংলা আনোয়ার ভাই সন্দ্বীপ থেকে আসলেন স্বপ্নের কথা টি বলতে। কমরেড মনিরুল হুদা বাবন ভাই শুধু প্রাণের টানে রাজধানী হতে চলে আসলেন এ মহামিলনে, মুক্তিযোদ্ধা আলি হায়দার বাবলু চৌধুরী শুনাইলেন সন্দ্বীপ টাউন হল আর সেকান্দর মহল সিনেমা হলের কথা ।
কাতার থেকে আসলেন আমাদের শ্রদ্ধেয় নুরুল মোস্তফা খোকন শুনালেন নাও বাইওনা মাঝি বিষম ধইরাতে। জাসদ কেন্দ্রীয় যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক নুরুল আক্তার বক্তব্য রাখলেন সন্দ্বীপ টাউনে মুক্তিযুদ্ধর ইতিহাস নিয়ে। অনেক দিন পর বক্তব্য শুনলাম মোক্তাদের মাওলা সেলিম ভাইয়ের যিনি সন্দ্বীপে প্রতিমন্ত্রীর প্রোগ্রাম বাতিল করে শুধু প্রাণের উৎসবে অংশগ্রহণ করার জন্য চলে আসলেন, সন্দ্বীপ থেকে এসেছিলেন আমাদের প্রিয় সাংবাদিক সাধারণ সম্পাদক সন্দ্বীপ প্রেসক্লাব ইলিয়াস কামাল বাবু ভাই, ঢাকা থেকে এসেছিলেন চ্যানেল আই এর শওকত ভাই, রুপালীর মঞ্জু ভাই, শেষের দিকে শ্রদ্ধেয় হেদায়েতুল ইসলাম মিন্টু কাকার বক্তব্য অনেকের চোখে পানি টলমল করেছে। দীর্ঘ ৫ বছর পর দেখা পেলাম এফ এম রেডিওর RJ রিগান ভাইকে, অনেকদিন পর সরাসরি সাক্ষাত হলো রাজনৈতিক বড়ভাই সংযুক্ত আরব আমিরাত রাস আল খাইমা বঙ্গবন্ধু পরিষদ এর সভাপতি Mohammad Anowar Hossain সবুজ ভাইয়ের সাথে।

মিলন মেলায় আমার তিনজন ফেইজবুক বন্ধুদের সরাসরি সাক্ষাত পেয়েছি একজন নারী অধিকার নিয়ে কাজ করেন বোনJahan Nusrat Ankhi
তরুণ সমাজ উন্নয়ন কর্মী Mannan Nabil
গণমাধ্যম কর্মী দৈনিক আজাদী ও সিপ্লাস টিভি সন্দ্বীপ প্রতিনিধি অপু ইবরাহিম অনেক ভালো লাগলো নতুনদের সাথে পরিচয় হয়ে।

যাদের শ্রমে এবং মনোমুগ্ধকর পরিবেশনা প্রাণবন্ত ছিলো আয়োজন তাদের দুইজন শ্রদ্ধেয় সাগর শাহ্‌ নেওয়াজ ভাই ও শ্রদ্ধেয় মঞ্জুর ভাই, তারা অনেক শ্রম দিয়ে এ আয়োজন সফল করেছেন এবং তাদের ব্যক্তিগত পরিবেশনা গান অতিথি দের মনোমুগ্ধ করেছে। তবে আয়োজনে যারযার বেশি ঘাম ঝরেছে আমাদের মধ্য শ্রদ্ধেয় সাখাওয়াত নাসির ভাই, বিশেষ করে মেলা আর লটারি প্রাইজ বিতরণ নিয়ে ওনার যে শ্রম অবশ্য প্রশংসনীয়, সাথে আমার আরেক বড়ভাই আব্দুল হালিম নাসির কে ও ধন্যবাদ জানাচ্ছি, আশাকরি সামনে আরো সুন্দর সুন্দর আয়োজন থাকবে আরো বেশী সন্দ্বীপ টাউন বাসীর সুযোগে পাবে ধন্যবাদ সন্দ্বীপ টাউন সোসাইটি’র মিলন মেলা পরিচালনা কমিটির সকল কে।

লেখক : প্রবাসী ও গণমাধ্যম কর্মী।


এখানে খুজুন


আরও পড়ুন