আজ রবিবার, ২৪ জুন ২০১৮ ইং, ১০ আষাঢ় ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



বিএনপি নামক দলটিকে নিষিদ্ধ করা হউক

Published on 10 February 2018 | 8: 59 am

:: মুফতী মাসুম বিল্লাহ নাফিয়ী ::

বিএনপির সৃষ্টি হয়েছে অবৈধভাবে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ভূলুণ্ঠিত করার লক্ষে। জিয়া বন্দুকের নল দিয়ে রাষ্ট্র ক্ষমতায় বসে তায়ই করেছে। ধর্মীয়মূল্যবোধের নামে সংবিধানে বিস….. সংযোজন করে বাংলাদেশের সংখ্যালঘিষ্ঠ মুসলিমদের অনুভূতিকে হীনস্বার্থে লাগানোর অপচেষ্টায় লিপ্ত হয়েছে বারবার। একাত্তরের ঘাতকদের রাষ্ট্রীয় ক্ষমতার অংশীদার করেছে বেগম জিয়া।

এছাড়াও মানবতাবিরোধীদেরকে দেশ-বিদেশে সামাজিক, রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিকভাবে প্রতিষ্ঠা করেছে বিএনপি। মিথ্যার উপর প্রতিষ্ঠিত বিএনপি নামক পাকিস্তানিপন্থী এই দলটির নীতি-নৈতিকতা বলতে কিছুই নেই। বিএনপি নেত্রী এতিমের টাকা আত্মসাতের মামলায় আদালত কর্তৃক অপরাধী হিসেবে প্রমাণিত হয়ে ৫ বছর সশ্রম দণ্ডিত শাজায় কারাগারে বন্দি।

সাম্প্রতিক বিএনপির গঠনতন্ত্রের ৭ ধারা বাদ দিয়ে দুর্নীতিবাজ ও কুখ্যাত নেতাদের দলে পদায়ন ও সংসদ নির্চানের জন্য দলীয় মনোনয়নের পদ উন্মুক্ত করা হয়েছে।যার দ্বারাই বিএনপি দুর্নীতি ও সন্ত্রাসকে দলীয়ভাবে সমর্থনের মাধ্যমে প্রাতিষ্ঠানিক স্বীকৃতি দিয়েছে। বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানও এতিমের টাকা আত্মসাতের মামলায় ১০ বছর সশ্রম দণ্ডে দণ্ডিত। তারেক রহমানকে এখন গঠনতন্ত্র অনুযায়ী বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান করা হয়েছে। একজন দুর্নীতিবাজ শাজাপ্রাপ্ত আদলত কর্তৃক দুষীব্যক্তি বিএনপির চেয়ারম্যান। যা সম্ভব হয়েছে দলের ৭ নং ধারা বাতিলের মধ্য দিয়ে।বিএনপির নামক দলের মধ্যে এমনটাই হওয়া তেমন কোন অমূলক বিষয় নয়।

“চোরের মার বড় গলা” বেগম জিয়ার জন্য আদলতের আরো কয়েকটি ধাপ রয়েছে।অস্থির হওয়ার দরকার নেই। আইনি লড়ায়ের মাধ্যমে নির্ম্ম আদলতের রায়ের মোকাবিলা করুন উচ্চ আদালত গুলোতে। সরকারের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করে নয়। যে দল ও দলের শীর্ষ নেতাদের কোন নীতি-নৈতিকতা নেই।তাদের মুখে নির্মল বচন ও গণতন্ত্রের কথা একেবারেই বেমানান। এতিমের টাকা আত্মসাত, বিদ্যুৎ এর খাম্বা বসিয়ে রাষ্ট্রের অর্থ ডাকাতি ও হাওয়া ভবন বানিয়ে দেশের টাকা বিদেশে পাচার সহ নানাহ প্রকার অপরাধের মাধ্যমে দুর্নীতিতে চেম্পিয়ান।

এগুলোই বিএনপির চরিত্র যা দেশের গণমানুষের কাছে আজ দৃশ্যমান। সুতারং বিএনপি নামক দলটি রাজনৈতিক নৈতিকতা হারিয়েছে একাত্তরের ঘাতকদের হাতে শহীদের নির্মল রক্তমাখা লাল সবুজের পতাকা তুলে দেয়ার মধ্যদিয়ে।গণমানুষের অধিকার নিয়েও কথা বলার সম্পূর্ণ অধিকার হারিয়েছে এতিমের সামান্য কয়টা টাকা আত্মসাত করার মাধ্যমে।

দুর্নীতি ও মানবতাবিরোধীদের পৃষ্ঠপোষকতা দেয়ার মাধ্যমের মুক্তিযুদ্ধের চেতনার অসম্প্রদায়িক বাংলাদেশে বিএনপি হারিয়েছে রাজনীতি চর্চার সকল পর্ব।অতএব বিএনপিকে মানবতাবিরোধী অপশক্তিকে পৃষ্ঠপোষকতা করার দায়ে চিহ্নিত করে আইনের আওতায় এনে ন্যায়বিচারের মাধ্যমে দৃষ্টান্ত মূকল শাস্তি ও বিএনপির রাজনীতি নিষিদ্ধ করতে সরকারের প্রতি জোর দাবী করছি।

তবেই দেশে সুস্থ রাজনীতির ধারা ও সুশাসন প্রতিষ্ঠার পথ উন্মুক্ত হবে বলে আশাবাদী এবং মহান সংসদও হয়ে উঠবে স্বাধীনতাবিরোধী মুক্ত মুক্তিযুদ্ধের চেতনার স্বপক্ষের সংসদ ইনশাআল্লাহ।


এখানে খুজুন


আরও পড়ুন