আজ বৃহঃপতিবার, ১৯ জুলাই ২০১৮ ইং, ০৪ শ্রাবণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



ঢাবিতে রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট প্রতিনিধি নির্বাচন – ২৫টির ২৪টিতেই আওয়ামীপন্থীদের জয়

Published on 22 January 2018 | 2: 49 am

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সিনেটে ২৫ রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট প্রতিনিধি নির্বাচনে ২৪টিতে জয় পেয়েছেন আওয়ামী লীগপন্থী গণতান্ত্রিক ঐক্য পরিষদের প্রার্থীরা। অন্যদিকে মাত্র ১টিতে জিতেছে বিএনপি সমর্থিত জাতীয়তাবাদী পরিষদ। রোববার বিকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে নির্বাচনের এ ফলাফল ঘোষণা করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভিসি (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. নাসরীন আহমাদ।

ফলাফল ঘোষণা শেষে সাংবাদিকদের তিনি জানান, এ নির্বাচনে ৮০ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। মোট ভোটার ৪৩ হাজার ৯৯৭ জন। নির্বাচনে ভোট পড়েছে ২২ হাজার ৬৪২টি। তার মধ্যে ১ হাজার ২৬০টি বাতিল হয়েছে। নির্বাচনের বিষয়ে তিনি বলেন, অত্যন্ত সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। নির্বাচন নিয়ে কারও কোনো কথা ছিল না।

সব কেন্দ্রের ভোট গণনা শেষে প্রকাশিত ফলাফল অনুযায়ী নির্বাচনে সর্বোচ্চ ভোট পেয়েছেন রূপালী ব্যাংক লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও মো. আতাউর রহমান প্রধান (প্রাপ্ত ভোট ১২ হাজার ৯৬৭)। দ্বিতীয় ও তৃতীয় সর্বোচ্চ ভোট পেয়েছেন যথাক্রমে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও দু’বারের নির্বাচিত সাবেক সিনেট সদস্য অধ্যাপক ড. এএসএম মাকসুদ কামাল (১২ হাজার ৪৬) ও রূপালী ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম ফরিদ উদ্দিন (১১ হাজার ৯৬৮)।

অন্যদিকে বিএনপি সমর্থিত জাতীয়তাবাদী প্যানেল থেকে শুধু ১ জন বিজয়ী (২২তম) হলেন ঢাবির সাবেক ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক আ ফ ম ইউসুফ হায়দার (প্রাপ্ত ভোট ১০ হাজার ৫০০)। আর আওয়ামী লীগ সমর্থিত গণতান্ত্রিক ঐক্য পরিষদ থেকে একমাত্র পরাজিত প্রার্থী হলেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অবসর বোর্ডের সচিব ও কিশোরগঞ্জ পৌর মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক শরীফ আহমদ সাদী।

অন্য নির্বাচিত রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট প্রতিনিধিরা হলেন (ভোটপ্রাপ্তির ক্রমানুসারে) সাংবাদিক এআরএম মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল (প্রাপ্ত ভোট ১১ হাজার ৯২৪), এসএম বাহালুল মজনুন (১১ হাজার ৫৯৬), মুহাম্মদ আবদুস সামাদ (১১ হাজার ৫৬৮), জিনাত হুদা (১১ হাজার ৫৫৭), অসীম সরকার (১১ হাজার ৩৩৫), এম ইকবাল আর্সলান (১১ হাজার ২২০), সাদেকা হালিম (১১ হাজার ১৬৭), মাহফুজা খানম (১১ হাজার ১২০), তাজিন আজিজ চৌধুরী (১১ হাজার ৮৫), এমরান কবির চৌধুরী (১১ হাজার ৩৩), এএইচএম এনামুল হক চৌধুরী (১০ হাজার ৯২৪), মো. লিয়াকত হোসেন মোড়ল (১০ হাজার ৮৩৮), মো. আলাউদ্দিন (১০ হাজার ৭৮৬), সৈয়দ হুমায়ুন আখতার ( ১০ হাজার ৭৩৯), রামেন্দু (কৃষ্ণ) মজুমদার (১০ হাজার ৬৮১), এবিএম বদরুদ্দোজা (১০ হাজার ৬৭২), নিজাম চৌধুরী (১০ হাজার ৫২৮), মো. আবদুল আজিজ (১০ হাজার ৫১২), মোহাম্মদ আবদুল বারী (১০ হাজার ৪৫২), রঞ্জিত কুমার সাহা (৯ হাজার ৯৬৭) এবং মো. নাসির উদ্দিন (৯ হাজার ৮১৮)।

শনিবার সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ করা হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩টি কেন্দ্রে উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট গ্রহণ হয়। ইতিপূর্বে ঢাকার বাইরে গত ৬ জানুয়ারি ২৮টি কেন্দ্রে, ১৩ জানুয়ারি ১৩টি কেন্দ্রে এবং ১৬ জানুয়ারি ১টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ করা হয়। সব কেন্দ্রের ভোট গণনা শেষে রোববার আনুষ্ঠানিকভাবে ফলাফল ঘোষণা করা হয়। নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি-জামায়াত সমর্থিতরা ২৫ জনের পূর্ণ প্যানেল দিলেও বাম সমর্থিতরা মাত্র ১৫ জনের প্যানেল দেয়। এই ১৫ জনের কেউই জয়ের মুখ দেখেনি। বিজয় ছিনিয়ে আনতে পারেনি স্বতন্ত্র ১৫ প্রার্থীর কেউই।

গণতান্ত্রিক ঐক্য পরিষদ থেকে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ভোটে নির্বাচিত সিনেট প্রতিনিধি ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. এএসএম মাকসুদ কামাল বলেন, ‘এই বিজয় মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের শক্তির। এ বিজয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারের উন্নয়নের পক্ষে গ্র্যাজুয়েটদের রায়। এদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিএনপি-জামায়াতপন্থী শিক্ষকদের সংগঠন সাদা দলের আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. আখতার হোসেন খান বলেন, আমরা ফলাফল মেনে নিয়েছি। আশা করি বিজয়ীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়নে সচেষ্ট থাকবেন।


এখানে খুজুন


আরও পড়ুন