আজ মঙ্গলবার, ১৯ জুন ২০১৮ ইং, ০৫ আষাঢ় ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



চিকিৎসকদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী – উপজেলায় থাকুন নয় তো চাকরি ছেড়ে দিন

Published on 29 December 2017 | 4: 19 am

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারি চিকিৎসকদের কর্মক্ষেত্রে থেকে যথাযথ ভাবে মানুষকে সেবা দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ‘উপজেলা পর্যায় থেকে মানুষকে সেবা দেয়ার মানসিকতা না থাকলে চাকরি ছেড়ে দিতে পারেন।’

বৃহস্পতিবার সকালে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে সাতটি সরকারি হাসপাতাল ও স্বাস্থ্য কেন্দ্রে অ্যাম্বুলেন্সের চাবি হস্তান্তর অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘উপজেলা পর্যায়ে নিয়োগপ্রাপ্ত চিকিত্সকদের অনেকেই কর্মক্ষেত্রে থাকতে চান না। তারা যে কোনো উপায়ে ঢাকায় থাকার চষ্টো করেন।

যদি চিকিৎসকদের ঢাকাতেই থাকার ইচ্ছা হয়, তাহলে তাদের সরকারি চাকরি করার প্রয়োজন নেই। রাজধানীতে বসে প্রাইভেট রোগী দেখে তারা অনেক টাকা উপার্জন করতে পারেন।

এ ধরনের মানসিকতা থাকলে চাকরি ছেড়ে দেয়াই ভালো। তাহলে আমরা তাদের স্থানে নতুন নিয়োগ দিতে পারব।’

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন স্বাস্থ্য বিভাগের সচিব মো. সিরাজুল হক খান এবং সমাপনী বক্তব্য দেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক আবুল কালাম আজাদ।

এ সময় স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, প্রধানমন্ত্রীর উপদষ্টো এইচটি ইমাম, স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালিক, মত্স্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী এবং প্রেস সচিব ইহসানুল করিম উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে শেখ হাসিনা মানসম্পন্ন চিকিৎসক তৈরিতে মেডিকেল কলেজগুলোর শিক্ষার মান উন্নয়নে সংশি্লষ্টতের নির্দেশ দেন।

সরকার দেশে বিপুলসংখ্যক মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠা করেছে উলে্লখ করে তিনি বলেন, ‘আমরা ইতিমধ্যে পাঁচটি সেনানিবাসে মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠার অনুমোদন দিয়েছি এবং পর্যায়ক্রমে অন্যান্য সেনানিবাসেও এ ধরনের কলেজ প্রতিষ্ঠা করব।’

তিনি বলেন, ‘মেডিকেল কলেজগুলোতে কি ধরনের চিকিত্সা সেবা প্রদান করা হচ্ছে তা সংশি্লষ্ট কতর্ৃপক্ষকে তদারকি করতে হবে। সেখানে রোগী হত্যাকারী ডাক্তার নাকি রোগী রক্ষাকারী ডাক্তার তৈরি হচ্ছে, তা দেখতে হবে।’

প্রধানমন্ত্রী জানান, তার সরকার স্বাস্থ্য সেবার উন্নয়নে মেডিকেল শিক্ষার্থীদের উচ্চশিক্ষা নিশ্চিতে ঢাকায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেছে এবং চট্টগ্রাম ও রাজশাহীতে আরও দুটি মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে।

ইন্টারনেট সেবার সর্বোত্তম সুযোগ-সুবিধা কাজে লাগানোর জন্য মেডিকেল শিক্ষার্থীদের পরামর্শ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ইন্টারনেটের মাধ্যমে বিশ্বের বিখ্যাত কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ক্লাস ও লেকচার অনুসরণ করা যেতে পারে।’

দেশের মেডিকেল শিক্ষার্থী এবং ডাক্তাররা একাডেমিক মিথস্ক্রিয়ার মাধ্যমে যাতে অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করতে পারেন সেজন্য শিক্ষক হিসেবে বাংলাদেশে বিদেশি ডাক্তারদের সুযোগ উন্মুক্ত করার পরামর্শ দেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘যদি বিদেশি বিশেষজ্ঞ চিকিত্সকরা বাংলাদেশে আসেন তাহলে দেশের লোকদের চিকিত্সার জন্য বিদেশে যেতে হবে না, এখানেই তারা বিদেশি চিকিৎসা সেবা পাবেন।’

স্বাস্থ্য খাতে সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, ”তার সরকারের লক্ষ্য হচ্ছে স্বাস্থ্যসেবা জনগণের দোরগোড়ায় পঁেৌছে দেয়া।’

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বান্দরবান সদর হাসপাতাল, গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপে্লক্স, কুড়িগ্রাম জেলার রাজিবপুর, খুলনার ফুলতলা, নেত্রকোনার কেন্দুয়া, গাজীপুর জেলার কালিয়াকৈর এবং ঢাকায় জাতীয় হূদরোগ ইন্সটিটিউটের সংশি্লষ্ট কতর্ৃপক্ষের কাছে সাতটি অ্যাম্বুলেন্সের ডামি চাবি হস্তান্তর করেন।

পটুয়াখালী জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের শপথ গ্রহণ : প্রধানমন্ত্রী বৃহস্পতিবার সকালে তার কার্যালয়ে পটুয়াখালী জেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান খলিলুর রহমানকে শপথবাক্য পাঠ করান।

স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব আবদুল মালেকের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন, জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ এমপি, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. কামাল আবদুল নাসের চেৌধুরীসহ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সাংবাদিক লাভলুর চিকিত্সায় প্রধানমন্ত্রীর অনুদান : দৈনিক ভোরের কাগজের প্রধান প্রতিবেদক সৈয়দ আকতারুজ্জামান সিদ্দিকী লাভলুর চিকিৎসার জন্য ১০ লাখ টাকা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার বিকালে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে তার প্রেস সচিব ইহসানুল করিম অনুদানের চেক প্রদান করেন।

দীর্ঘদিন ধরে লিভার ক্যান্সারে আক্রান্ত সাংবাদিক লাভলু সম্প্রতি ভারত থেকে চিকিত্সা নিয়ে দেশে ফিরেছেন। লাভলু চিকিত্সা নিতে আবারও ভারত যাবেন।


এখানে খুজুন


আরও পড়ুন