আজ শনিবার, ১৮ আগষ্ট ২০১৮ ইং, ০৩ ভাদ্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



ভয়াল ৭১-এর বিজয়ের পরও আমাদের পরাজয়

Published on 12 December 2017 | 8: 06 am

 :: তানজিলা খানম তনিমা ::


সাল ১৯৫২ ভাষা আন্দোলনের লড়াই, ১৯৫৪ য্ক্তুফ্রন্ট গঠন, ১৯৫৮ মার্শাল-ল, ১৯৬৬ ছয়দফা, ১৯৬৯ গণঅভ্যুন্থান, ১৯৭০ এর নির্বাচন, অবশেষে ১৯৭১ দীর্ঘ নয় মাস যুদ্ধ অবশেষে ১৬ই ডিসেম্বর বিজয় হয় আমাদের।কিন্তু প্রশ্ন এত কষ্টের বিজয়ের পরেও আমরা কি বিজয়ী ?

আমরা যদি বিজয়ী হতাম আমাদের থাকতোনা সংঘাত। আমরা যদি বিজয়ী হতাম আমাদের নারী পেত সম্মান। আমরা যদি বিজয়ী হতাম আমাদের মাতৃসন্তানেরা হতোনা রক্ত ও ইজ্জত পিপাসু। আমাদের বিজয় কি ক্ষণিকের ছিল?আসলে আমি বিবেক কে জিজ্ঞেস করলে নিজেই উত্তর পাইনা কারণ তখন মনে হয় আমরা অন্ধকারে নিমজ্জিত, আমাদের আলো আসেনি ,আমাদের বিজয় সূর্য গ্রহনে ডুবে গেছে ।যদি তা না হত আমাদের মাতৃ সন্তানেরা নিজেদের মধ্যে হয়ে উঠতোনা হিংসা, করতোনা অন্য মাতৃসন্তানের দাফন, করতোনা ধর্ষন, স্কুল কলেজের বোনেরা পেতো পাওনা সম্মানটুকু।কেন এসব আমরা কি জানিনা বিজয়ের ইতিহাস, আমরা কি শুনিনি ৩০লক্ষ প্রান দান, আমরা কি শুনিনি ২লক্ষ সম্মানের কথা তাহলে কেন এমন পরিনতি আজ আমাদের?
”আমিতো চাইনি এমনি রক্তপাত
জীবন ও রক্তের সংঘাত
লাখ শহীদের রক্তের সম্মান
ছিল কি তব বৃথা
যাতে আমরা ভুলেছি আজ
বিজয়ের ইতিকথা
ভাবলে আমার আধাঁর চারপাশ
আমি তো ভুলিনী বিজয় ইতিহাস।
তাই আমি বলতে পারি ভাই ও বোনেরা আমরা সংঘাত ভুলে যাই ,ভুলে যাই হিং¯্র উদ্দীপনা ,সব ভুলে রাখবো মোরা বিজয়ের সম্মান আর সম্ভাবনা।তাই,
“সম্ভাবনার দেশ আমার বাংলাদেশ
জেগেছে বাংলাদেশএখনি সময় তার ।”
সুতারাং বিজয়ীদের অর্থাৎ আমাদের বিজয়কে আমরা টিকিয়ে রাখার সময় এখন আর তা আমরা করবো ১৬কোটি মানুষের ৩২ কোটি হাতে।


এখানে খুজুন


আরও পড়ুন