আজ বুধবার, ২০ জুন ২০১৮ ইং, ০৬ আষাঢ় ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



আনিসুল হকের ১ম জানাজা লন্ডনে, ২য় জানাজা শনিবার বিকেল ৪ টায় ঢাকা আর্মি স্টেডিয়ামে

Published on 01 December 2017 | 3: 22 am

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) সাবেক মেয়র আনিসুল হকের দুইটি জানাজা অনুষ্ঠিত হবে বলে পরিবার সূত্রে জানা গেছে। প্রথম জানাজাটি ১ ডিসেম্বর শুক্রবার বাদ জুম্মা লন্ডনের রিজেন্ট পার্কে অনুষ্ঠিত হবে। পরেরদিন শনিবার সকাল ১১টার দিকে বাংলাদেশ বিমানের একটি ফ্লাইটে তার মরদেহ ঢাকায় আনা হবে। ওইদিন বিকেল চারটায় আর্মি স্টেডিয়ামে হবে আনিসুল হকের দ্বিতীয় জানাজা।
এর আগে ৩০ নভেম্বর বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সময় রাত ১০টা ২৩ মিনিটে লন্ডনের ওয়েলিংটন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান আনিসুল হক।
মত্যুর দুইদিন আগে তার শারীরিক অবস্থার ব্যাপক অবনতি ঘটে। ৩০ নভেম্বর বৃহস্পতিবার বিকেলে যুক্তরাজ্যে আনিসুল হকের স্ত্রী রুবানা সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘তার ফুসফুসে সংক্রমণ হয়েছে। অবস্থা ভালো নয়। তার জন্য জন্য দোয়া করুন।’
মাঝে শারীরিক অবস্থার কিছুটা উন্নতি ঘটলেও গত ২৮ নভেম্বর মঙ্গলবার ফের আইসিইউতে নেওয়া হয় আনিসুলকে। এদিন স্থানীয় সময় সন্ধ্যায় শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে মেয়র আনিসুল হককে ‘লাইফ সাপোর্টে’ নেওয়া হয় বলে সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন তার ব্যক্তিগত সহকারী মিজানুর রহমান।
এর আগে গত ৪ আগস্ট মস্তিস্কের রক্তনালিতে সংক্রমণের কারণে লন্ডনের একটি হাসপাতালের আইসিইউতে রাখা হয়েছিল আনিসুল হককে। পরে ৩১ অক্টোবর অবস্থার উন্নতি হলে তাকে আইসিইউ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয় বলে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের বিবৃতিতে জানানো হয়।
মেয়রের পারিবারিক সূত্র জানায়, আনিসুল হক আগে থেকেই কিছুটা অসুস্থ ছিলেন। তবে দেশে চিকিৎসকরা তার সমস্যাটা ঠিক ধরতে পারেননি।
২৯ জুলাই ব্যক্তিগত সফরে সপরিবারে তিনি লন্ডন যান। পরে অসুস্থ হয়ে পড়লে ১৩ আগস্ট তাকে সেখানকার একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
এদিকে আনিসুল হকের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গভীর শোক প্রকাশ করেছেন ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন।
উল্লেখ্য, ১৯৫২ সালে নোয়াখালি জেলায় জন্মগ্রহণ করেন এই জনপ্রিয় টিভি উপস্থাপক, ব্যবসায়ী ও মেয়র। তিনি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে স্নাতক সম্পন্ন করেন। ১৯৮০ থেকে ১৯৯০-এর দশকে টেলিভিশন উপস্থাপক হিসেবে তিনি জনপ্রিয়তা লাভ করেন।
১৯৯১ সালের নির্বাচনের পূর্বে বিটিভিতে শেখ হাসিনা ও খালেদা জিয়ার মুখোমুখি একটি অনুষ্ঠান উপস্থাপনও করেছিলেন তিনি। এরপর ২০০৫ থেকে ২০০৬ সালে বিজিএমইএর সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন এবং ২০০৮ সালে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইর সভাপতি নির্বাচিত হন তিনি। মোহাম্মদি গ্রুপ ও দেশ এনার্জি লি: এর কর্নধার তিনি।
২০১৫ সালে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র নির্বাচিত হন তিনি। মেয়র হিসাবে নগরীর সৌন্দর্য বর্ধন এবং গণপরিবহন ব্যবস্থায় শৃংখলা আনার ক্ষেত্রে ব্যাপক উদ্যোগ নেন তিনি।


এখানে খুজুন


আরও পড়ুন