আজ বৃহঃপতিবার, ১৯ জুলাই ২০১৮ ইং, ০৪ শ্রাবণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



বিশিষ্ট শিল্পপতি এম নুরুল ইসলাম এর জানাজার নামাজ বাদ আছর জমিয়াতুল ফালাহ্ প্রাঙ্গনে

Published on 04 September 2017 | 10: 27 am

মোশাররফ হোসাইন :: সোনালী নিউজ ::


সন্দ্বীপের কৃতি সন্তান বিশিষ্ট শিল্পপতি ন্যাশনাল ব্যাংক লিঃ এর সাবেক চেয়ারম্যান জনাব এম নুরুল ইসলাম গত ২ সেপ্টেম্বর চট্টগ্রাম নগরীর একটি বেসরকারী হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৬ বছর। গত বেশ কিছু দিন যাবত বার্ধক্যজনিত বিভিন্ন জটিলতায় ভুগছিলেন।

 ৪ সেপ্টেম্বর বাদ আছর চট্টগ্রাম জমিয়াতুল ফালাহ্ জাতীয় মসজিদ প্রাঙ্গনে নামাজে জানাজা শেষে তাকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হবে।

জনাব এম নুরল ইসলাম ১৯৪১ সালের ১ জানুয়ারী সন্দ্বীপ উপজেলার মুসাপুর গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহন করেন। তার পিতার নাম মরহুম আব্দুল হাদী এবং মাতার নাম ওমেদা বেগম। ৬ ভাই বোনের মধ্য তিনি ৬ষ্ঠ তম। জনাব এম নুরুল ইসলাম সাহেব চট্টগ্রাম শহরের একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী ও শিল্পপতি। তিনি ইসলাম ট্রেডিং কোম্পানী, বাবু ওয়েল মিল, নিশি ওয়েল মিল এর স্বত্তাধিকারী। তিনি বাংলাদেশের বেসরকারী ব্যাংক  ন্যাশনাল ব্যাংক লিঃ এর অন্যতম উদ্যোক্তা পরিচালক। ১৯৮৩ সালে দেশের কিছু প্রতিতযশা ব্যাবসায়ীকে নিয়ে তিনি ১ম প্রজন্মের বেসরকারী ব্যাংক ন্যাশনাল ব্যাংক লিঃ প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৯৯ সালে তিনি উক্ত ব্যাংকের চেয়ারম্যান হিসেবেও সফলতার সাথে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৮৭ সালে তিনি প্রতিষ্ঠা করেন বেসরকারী বীমা কোম্পানী ইষ্ট ল্যান্ড ইন্স্যুরেন্স কোম্পানী লিঃ। ন্যাশনাল ব্যাংকের মাধ্যমে তিনি সন্দ্বীপের প্রচুর শিক্ষিত যুবককে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করে দেন। তার একক প্রচেষ্টায় অনেক ঝুঁকির মধ্যেও আশির দশকে সন্দ্বীপে ন্যাশনাল ব্যাংক লিঃ এর শাখা খোলা হয়। সন্দ্বীপের নিজ গ্রামে তিনি গড়ে তুলেন বিশাল একটি বহুমুখী কৃষি ও মৎস্য খামার। যাহা সন্দ্বীপে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করেছে। তার দেখাদেখি সন্দ্বীপে বাণিজ্যিকভাবে অনেক কৃষি ও মৎস্য খামার গড়ে উঠেছে। সন্দ্বীপের আর্থ সামাজিক উন্নয়ন ও বেকার যুবকদের কর্মসংস্থানে এটি  গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে। জনাব এম নুরুল ইসলাম একজন পরিশ্রমী ও সৎ মানুষ হিসেবে তিনি আলাদা ইমেইজ গড়ে তুলেছেন। কখনো প্রশ্রয় দেননি কর্মভিমুখতাকে। গরীব কিন্তু কর্মক্ষম কোন মানুষকে তিনি কখনো ভিক্ষাবৃত্তিতে উৎসাহিত করেননি। ওরকম কেউ সাহায্যের জন্য আসলে তিনি সবসময় বলেন কাজ করে খাও। ভিক্ষা কোন পেশা হতে পারে না। পরিশ্রম করবে সময়কে কাজে লাগাবে। তাহলে জীবনে সফল হবে।

জনাব এম নুরুল ইসলাম নিজ ব্যবসার পাশাপাশি বিভিন্ন সামজিক কর্মকান্ডের সাথেও গভীরভাবে জড়িত ছিলেন। তিনি চট্টগ্রামের ব্যবসায়ীদের সর্বোচ্চ সংগঠন চট্টগ্রাম কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রিজ এর ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি সন্দ্বীপের মাটি ও মানুষের সাথে গভীরভাবে সম্পৃক্ত ছিলেন। সন্দ্বীপের ঐতিহ্যবাহি সংগঠন সন্দ্বীপ এসোসিয়েশন চট্টগ্রাম ও সন্দ্বীপ এডুকেশন সোসাইটি চট্টগ্রাম এর উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাপতালের কার্যনির্বাহী কমিটির সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট, শান্তিধারা আবাসিক কল্যাণ সমিতির উপদেষ্টা, চট্টগ্রাম মহানগর ক্রীড়া সংস্থার সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়াও তিনি চট্টগ্রাম অন্ধ কল্যান সমিতি, রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি, চট্টগ্রাম ক্লাব লিঃ, চট্টগ্রাম ডায়বেটিক সমিতি, অটিষ্টিক চিলড্রেন ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশন সহ বিভিন্ন সামিজিক সংগঠনের সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন।

এম  নুরুল ইসলাম এর মৃত্যুতে সন্দ্বীপের বিভিন্ন মহলে শোকের ছায়া নেমে আসে। তার মৃত্যুতে সন্দ্বীপবাসীদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে আসে। তার মৃত্যুর সংবাদ শুনে হাজার হাজার সন্দ্বীপবাসী তার নাসিরাবাদের বাসভবন শ্যামলীমায় ভিড় করেন। তার মৃত্যুতে সন্দ্বীপবাসী তাদের একজন প্রকৃত অভিভাবককে হারাল।

এম নুরুল ইসলামের মৃত্যুতে সন্দ্বীপ এসোসিয়েশন চট্টগ্রাম, সন্দ্বীপ এডুকেশন সোসাইটি চট্টগ্রাম, লায়নস ক্লাব অব চিটাগং সন্দ্বীপ, সন্দ্বীপ মডেল হাই স্কুল প্রাক্তন ছাত্র/ছাত্রী পরিষদ, কার্গিল হাই স্কুল প্রাক্তন ছাত্র/ছাত্রী পরিষদ, আমরা সন্দ্বীবাসী, সন্দ্বীপ অধিকার সংরক্ষণ কমিটি, সন্দ্বীপ ফাউন্ডেশন, সন্দ্বীপ ষ্টুডেন্ট ফোরাম চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়, সোনালী সন্দ্বীপ পরিবার, সোনালী সন্দ্বীপ লেখক-পাঠক ফোরাম ইত্যাদি সংগঠনের পক্ষ থেকে শোক প্রকাশ করা হয়েছে।

নেতৃবৃন্দ মরহুমের আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন এবং শোকাহত পরিবারবর্গে প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।


এখানে খুজুন


আরও পড়ুন