আজ মঙ্গলবার, ১৭ জুলাই ২০১৮ ইং, ০২ শ্রাবণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



চাকুরি হারানোর শংঙ্কা হাজারো সন্দ্বীপীর : উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা

Published on 02 July 2017 | 7: 00 am

মহিউদ্দিন টিপু :: গুপ্তচরা ঘাট থেকে ফিরে ::::::


দীর্ঘ আট দিনের টানা ঈদের ছুটি শেষে আজ রবিবার বেশিরভাগ সরকারী, আধা-সরকারী, বেসরকারী আফিস খুলেছে। সবাই যখন অফিসের প্রথম কর্মদিবসে সহকর্মীদের সাথে ঈদ শুভেচ্ছা, কৌশল বিনিময়ে ব্যস্ত। একে অন্যের খৌঁজ খবর নিচ্ছেন সেখানে সাগর কন্যা সন্দ্বীপের হাজারো কর্মজীবী বৈরি আবহাওয়ার কারণে কর্মস্থলে ফিরতে না পারার যন্ত্রণায় বিভোর। অনেকের মধ্যে চাকরী হারানোর শংঙ্কা ও সংশয় কাজ করছে।

গত তিন দিন যাবৎ প্রতিদিন সন্দ্বীপ থেকে চট্রগ্রাম যাতায়তের প্রধান রুট গুপ্তচরা ঘাটে যাত্রীরা সারাদিন অপেক্ষা করে ফিরে যাচ্ছেন বাড়ি, ছোখে মুখে শংঙ্কা নিয়ে।

নিজেদের অসহায়ত্বের কথা বলতে গিয়ে চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত নিজাম উদ্দিন বলেন, দুই ছেলে মেয়ে নিযে সন্দ্বীপ ঈদ করতে এসে চরম বেকায়দায় পড়েছি, আজ থেকে বিশ্ববিদ্যালয় অফিস খোলা । আমার ছেলের ক্লাস মেয়ের কোচিং খোলা, তাদের লেখা পড়ার বেঘাত ঘটবে পাশাপাশি আমার অফিসে চরম ক্ষতি হবে। গতকাল ছেলে মেয়েদের নিয়ে ঘাটে এসেছিলাম চট্রগ্রাম যাওয়ার উদ্দেশ্যে কোন উপায় অান্তর না পেয়ে সারা দিন ঘাটে অপেক্ষা করে বিকেলে ছেলে মেয়েদের নিয়ে বাড়ি ফিরে গেছি আজ আবার এসেছি। এখন কি করবো বুঝতে পারছি না।

উল্লেখ্য গতকাল কয়েকজন যাত্রীর অনুরোধে চট্রগ্রাম যাতায়তের বিকল্প ঘাট ছোয়াখালি ঘাট দিয়ে শতাধীক যাত্রী নিয়ে একটি ট্রলার সন্দ্বীপ থেকে চট্রগ্রামের উদ্দেশ্যে রওনা হয় কিছুদূর যাওয়ার পর উত্তাল সাগরের তোপের মুখে ট্রলারের নিচের অংশ ফেটে যায়। অবশ্য কোন ক্ষয়ক্ষতির আগেই স্থানীয়দের সহযোগীতায় যাত্রীসহ ট্রলারটি স্থলভাগে আনতে সক্ষম হয়।

এমতাবস্থায় বিকল্প করনীয় নিয়ে সন্দ্বীপের কর্তাব্যক্তিদের নিরবতা জনমনে নানা সংশয়ের জন্ম দিয়েছে। ভূক্তভোগীদের দাবী বিকল্প জাহাজ দিয়ে হলেও কর্মজীবীদের জরুরী ভিত্তিতে চট্রগ্রাম আসার ব্যবস্থা করা হোক।


এখানে খুজুন


আরও পড়ুন