বিমানটি রাজশাহী যাওয়ার বদলে ঢাকায় ফিরে আসার ঘোষণা দেয়ার পরও প্রায় এক ঘণ্টা আকাশে চক্কর দেওয়ার সময় আতঙ্কিত হয়ে পড়েছিলেন অনেক যাত্রী। ফ্লাইটটি পরে নিরাপদে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে অবতরণ করে।

‘ওই সময়টা আল্লাহ আল্লাহ করছিলেন সবাই। নিরাপদে অবতরণের পর বের হয়ে আসার পর যেন নতুন জীবন পেয়েছি,’ জানিয়ে সেই সময়ের বর্ণনা দিয়েছেন এক যাত্রী।

ঠিক দুপুর ২টায় বিমানের ড্যাশ-এইট বিজি-৪৯১ ফ্লাইটটি রাজশাহীর উদ্দেশে ঢাকার আকাশে উড়ে। কিছুক্ষণ উড়ার পর ঘোষণা দেওয়া হয়, প্লেনটি আবার ঢাকায় ফিরে যাচ্ছে।

‘হঠাৎ এমন ঘোষণায় যাত্রীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। ঢাকার আকাশে ফিরে আসার পরও ল্যান্ডিং না করায় আতঙ্ক আরো বেড়ে যায়,’ মন্তব্য করে নিয়মিত বিমানে ভ্রমণ করা ওই যাত্রী বলেন: আমরা বুঝতে পারছিলাম যে সময়ের আগে অবতরণের কারণে ফ্লাইট থেকে তেল ফেলে দেওয়া হচ্ছে।

‘অনেকে বিষয়টা জানে না, আবার যারা জানে তারাও এরকম সময়ে আতঙ্ক কাটিয়ে উঠতে পারে না। তখন আমরা সবাই আল্লাহ-আল্লাহ করছিলাম,’ বলে জানান তিনি।

বিমান সূত্রগুলো জানায়, ফ্লাইটটি উড্ডয়নের সময় একটি চাকা ফেটে যায়। সঙ্গে সঙ্গে তা ফ্লাইট কন্ট্রোল থেকে পাইলটকে জানানো হয়। পাইলটও পরীক্ষা করে বুঝতে পারেন একটি চাকা ফেটে গেছে। সে কারণে রাজশাহীর বদলে ফ্লাইটটি ঢাকায় ফিরে আসে।

চুরাশি জন যাত্রী বহনে সক্ষম ড্যাশ-এইট ফ্লাইটে যাত্রী ছিলেন ৭২ জন। তাদের একজন রাজশাহীর এমপি আব্দুল ওয়াদুদ দারা।

যোগাযোগ করা হলে  তিনি বলেন, ফ্লাইটটি ঢাকায় ফিরে আসার পর প্রথমে আজই আবার আমাদেরকে ওই ফ্লাইটে রাজশাহী নিয়ে যাবার কথা ছিল।

‘পরে জানানো হয়, আজ আর যাওয়া সম্ভব হচ্ছে না। স্ত্রী-কন্যাসহ তাই বাসায় ফিরে যাচ্ছি,’ জানিয়ে এমপি দারা বলেন, ফ্লাইটটি কখন যাবে বিমান থেকে পরে জানিয়ে দেবে।