আজ বুধবার, ১৫ আগষ্ট ২০১৮ ইং, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



ইমরুলকে ফেলে দেয়ায় চিটাগাংয়ের শাস্তি, আউটের পরিবর্তে উল্টো পাঁচ রান পেয়ে যায় কুমিল্লা

Published on 04 December 2015 | 8: 26 am

চারদিনের চট্টগ্রাম পর্বে ঘটনার ঘনঘটা। স্বাগতিকদের বিপক্ষে কুমিল্লার জয়ে যা শেষ হল বৃহস্পতিবার। নিজেদের আঙিনায় শেষ ম্যাচে চিটাগাং ভাইকিংস হারল পাঁচ উইকেটে। চারদিনে নানা বিচিত্র ঘটনার সাক্ষী হয়ে রইল জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়াম। বরিশাল বুলস ও চিটাগাং ভাইকিংস ম্যাচে ফিক্সিংয়ের গন্ধ, বরিশালের এভিন লুইসের সেঞ্চুরি, হেলিকপ্টারে ঢাকা থেকে উমর আকমলকে উড়িয়ে আনা, সিলেটের হয়ে প্রথম ম্যাচে শহীদ আফ্রিদির ফিফটি, শেষদিনে বৃষ্টি। অবশেষে বিপিএল আজ ঢাকায় ফিরছে। শেষদিনে চিটাগাং ভাইকিংসের দিলশান ইমরুল কায়েসকে পা বাড়িয়ে দিয়ে ইচ্ছা করে ফেলে দেন। আউটের পরিবর্তে তাই উল্টো পাঁচ রান পেয়ে যায় কুমিল্লা। চিটাগাংয়ের বিপক্ষে ১৩৭ তাড়া করতে নেমে ১৯.৪ ওভারে পাঁচ উইকেট হারিয়ে লক্ষ্যে পৌঁছে যায় মাশরাফি মুর্তজার কুমিল্লা। এই হারে চিটাগাংয়ের শেষ চারে খেলার আশা কার্যত শেষ।

দিলশান-ইমরুলের ঘটনাটা ১.৪ ওভারে। তাসকিন আহমেদের বল পয়েন্টের দিকে ঠেলে রান নিতে দৌড়ান ইমরুল। আহমেদ শেহজাদ ফিরিয়ে দেন তাকে। ততক্ষণে দিলশান থ্রো করেছেন স্টাম্পের দিকে। বল চলে যায় সীমানার দিকে। ওভার থ্রোয়ে রান নিতে ছোটেন দুই ব্যাটসম্যান। স্টাম্পের কাছে বল ধরতে ছুটে আসছিলেন দিলশান। রান নিতে ছোটার সময় দিলশানের পায়ের সঙ্গে লেগে পড়ে যান ইমরুল। ততক্ষণে এই প্রান্তে ছুটে এসেছেন শেহজাদও। দুই ব্যাটসম্যানই এক প্রান্তে, অপর প্রান্তে স্টাম্প ভেঙে রানআউটের উল্লাসে মাতে চিটাগাং। ইমরুল আম্পায়ারকে জানান, ধাক্কা খেয়ে পড়ে গেছেন তিনি। তৃতীয় আম্পায়ার আনিসুর রহমানেরও মনে হয়েছে ইচ্ছে করেই ইমরুলকে আটকাতে চেয়েছিলেন দিলশান। তৃতীয় আম্পায়ার রানআউট দেননি। আম্পায়াররা ওই বলটা ‘ডেড’ ঘোষণা করেন। যে এক রান নিতে গিয়ে বিপত্তি, সেই একটি রানও দেয়া হয়েছে পেনাল্টি পাঁচ রানের সঙ্গে। ইমরুল ৩৫ রান করে দিলশানের বলেই আউট হয়েছেন। আহমেদ শেহজাদের ৩৭ এবং শোয়েব মালিকের অপরাজিত ৩৪ রানে জয় নিশ্চিত করে কুমিল্লা।

এর আগে চিটাগাং প্রথমে ব্যাট করে দিলশান ও তামিম ইকবালের ব্যাটে উদ্বোধনী জুটিতে ৫১ রান তোলে। তামিম ২৭ ও দিলশান ৩৯ রান করেন। আগের ম্যাচে উমর আকমল এক রানে আউট হয়েছিলেন। কাল চিটাগাংয়ের রানের চাকা সচল রাখেন তিনি। ৩৪ বলে চারটি চার ও দুটি ছয়ে অপরাজিত ৪৯ রান করেন। ইনজুরির কারণে মাশরাফি কাল বল করেননি। শোয়েব মালিক, কুলাসেকারা ও আবু হায়দার রনিরা রান চেপে রেখেছিলেন। পাঁচ উইকেটে ১৩৬ রানে থামে চিটাগাং।


এখানে খুজুন


আরও পড়ুন