আজ শুক্রবার, ২৫ মে ২০১৮ ইং, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



সন্দ্বীপের ড. দিদারুল আলম সহ উপসচিব হলেন ২৬৭ কর্মকর্তা

Published on 24 April 2017 | 3: 58 am


জ্যেষ্ঠ সহকারী সচিব পর্যায়ের ২৬৭ জন কর্মকর্তাকে উপ সচিব হিসেবে পদোন্নতি দিয়েছে সরকার। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় গতকাল রোববার এই আদেশ জারি করে রেওয়াজ অনুযায়ী পরবর্তী পদায়নের জন্য তাদের ওএসডি করেছে।

তবে উপ সচিবের স্থায়ী পদের চেয়ে কর্মকর্তার সংখ্যা বেশি হওয়ায় কীভাবে এই পদায়ন হবে তা এখনও স্পষ্ট নয়। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা বলেন, নতুন করে ২২তম ব্যাচের (২০০৩) কর্মকর্তাদের উপসচিব হিসেবে পদোন্নতি দেওয়া হয়েছে, পদোন্নতি পাওয়া বেশিরভাগ কর্মকর্তাই ওই ব্যাচের। এছাড়া পুরানো ব্যাচের পদোন্নতি বঞ্চিত হাতেগোনা কয়েকজন কর্মকর্তাকেও উপসচিব করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

এর আগে গত বছরের ২৭ নভেম্বর একসঙ্গে জনপ্রশাসনের ৫৩৬ কর্মকর্তাকে পদোন্নতি দেওয়া হয়। ওই সময় ২০৫ জন জ্যেষ্ঠ সহকারী সচিব পদোন্নতি পেয়ে উপসচিব হন। নতুন করে ২৬৭ জন কর্মকর্তাকে পদোন্নতি দেওয়ায় বর্তমানে উপসচিবের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৫৫১ জন। যদিও উপসচিবের স্থায়ী পদের সংখ্যা সাড়ে আটশর মত বলে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের তথ্য।

পদোন্নতি পেলেন যারা : পদোন্নতি পাওয়া কর্মকর্তাদের মধ্যে ১৯৮ জন, অর্থাৎ ৭৪ দশমিক ১৬ শতাংশই প্রশাসন ক্যাডারের। ‘সরকারের উপসচিব, যুগ্মসচিব, অতিরিক্ত সচিব ও সচিব পদে পদোন্নতি বিধিমালা২০০২’ অনুযায়ী, উপসচিব পদের পদোন্নতিতে প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তাদের জন্য ৭৫ শতাংশ এবং অন্য ২৬টি ক্যাডারের কর্মকর্তাদের জন্য ২৫ শতাংশ পদ নির্দিষ্ট করা আছে।

প্রশাসন ক্যাডারের বাইরে কৃষি ক্যাডারের পাঁচজন, আনসারের তিনজন, নিরীক্ষা ও হিসাবের চারজন, সমবায়ের পাঁচজন, ইকোনোমিক ক্যাডারের ছয়জন, মৎস্যের পাঁচজন, খাদ্যের দুইজন, সাধারণ শিক্ষার আটজন, তথ্যের চারজন, প্রাণিসম্পদের ছয়জন, ডাকের তিন জন, গণপূর্তের চার জন, রেলওরের তিন জন, পরিসংখ্যানের দুই জন, করের তিন জন, জনপথের দুই জন ছাড়াও টেলিযোগাযোগ, শুল্ক ও আবগারী, বন এবং ট্রেড ক্যাডারের একজন করে কর্মকর্তাকে উপসচিব পদে পদোন্নতি দেওয়া হয়েছে এবার।

রোববার বিকালে পদোন্নতির আদেশ জারির পর জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে ভিড় করেন কর্মকর্তরা। নোটিসবোর্ডে পদোন্নতির আদেশ টাঙানোর পর অনেকেই ফোনে খবর জানান অন্যদের। বরাবরের মত এবারের পদোন্নতিতেও শীর্ষ কর্মকর্তাদের একান্ত সচিবরা (পিএস) পদোন্নতির তালিকায় স্থান পেয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রীর একজন এপিএস ছাড়াও একজন মন্ত্রী, একজন প্রতিমন্ত্রী, একজন উপমন্ত্রীর পিএস এবং নয়জন সচিবের পিএসকে উপসচিব করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর এপিএস কাজী নিশাত রসুল, কৃষিমন্ত্রীর পিএস মোহাম্মদ শাহজালাল, জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রীর পিএস মো. মঞ্জুরুল হাফিজ এবং পরিবেশ ও বন উপমন্ত্রীর পিএস শাহ মোমিন পদোন্নতি পেয়ে উপসচিব হয়েছেন।

পিএসসি চেয়ারম্যানের পিএস মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম, দুদক কমিশনারের পিএস সৈয়দ রবিউল ইসলাম ও মোহাম্মদ মিজানুর রহমান এবং একটি সংসদীয় কমিটির চেয়ারম্যানের পিএস উত্তম কুমার মণ্ডলকে উপসচিব করেছে সরকার।

এছাড়া সেতু বিভাগের সচিবের পিএস মাহমুদ ইবনে কাসেম, শ্রম সচিবের পিএস হাবিবুর রহমান, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগের সচিবের পিএস আবু সেলিম মাহমুদউল হাসান এবং দুদক সচিবের পিএস মো. নুরুল হক পদোন্নতি পেয়েছেন।

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিবের পিএস কাজী শাহজাহান, কৃষি সচিবের পিএস মো. জিয়াউল হক, মন্ত্রিপরিষদ সচিবের পিএস এইচ এম নুরুল ইসলাম, স্থানীয় সরকার বিভাগের পিএস মো. শরিফুল ইসলাম, পরিবেশ ও বন সচিবের পিএস মোহাম্মদ গোলাম কিবরিয়াকেও উপসচিব পদে পদোন্নতি দেওয়া হয়েছে।

ড. দিদারুল আলম : সন্দ্বীপের ড. দিদারুল আলমকে উপসচিব করা হয়েছে বলে জানা গেছে। এর আগে তিনি র‌্যাব ২ হেডকোয়ার্টার এর ডেপুটি ডাইরেক্টর এন্ড সেকেন্ড ইন কমান্ড এর দায়িত্ব পালন করেন। তিনি কমান্ডার, এএসএফ, সেক্রেটারী জেনারেল, বিসিএস আনসার এসোসিয়েশন, বাংলাদেশ আনসার ও বিডিপি ফোর্স এর দায়িত্বও পালন করেন।

সন্দ্বীপের এই কৃতি সন্তান সন্দ্বীপের এ কে একাডেমী গাছুয়া থেকে এসএসসি পাশ করেন। এরপর সরকারী চট্টগ্রাম কলেজ, জাহাঙ্গির নগর বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে শিক্ষা জীবন সমাপ্ত করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনষ্টিটিউশন অব বিজনেস এডমিনিষ্ট্রেশন (আইবিএ) থেকে এসিবিএও সম্পন্ন করেন।


Advertisement

আরও পড়ুন