আজ মঙ্গলবার, ১৭ জুলাই ২০১৮ ইং, ০২ শ্রাবণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



বাউরিয়া জি.কে একাডেমীর ৯৭ ব্যাচের পুনর্মিলনী

Published on 23 January 2017 | 7: 39 pm

ফারহানা ইয়াসমিন রিমা :: সন্দ্বীপ উপজেলার ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপিট বাউরিয়া জি.কে একাডেমীর এসএসসি উত্তীর্ণ ১৯৯৭ ব্যাচের পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান গত ১৩ জানুয়ারী চট্টগ্রামের আগ্রাবাদস্থ এমব্রোসিয়া রেস্টুরেন্টে অনুষ্ঠিত হয়।

৯৭ ব্যাচের এই আনন্দ আয়োজনের শুরুতেই পরিচয় পর্ব, ফুলেল শুভেচ্ছা এর পর স্মৃতিচারন দিয়েই সাজানো হয় পুরো অনুষ্ঠানটি। পূনর্মিলনীর স্মৃতিকে ধরে রাখার জন্য সবার হতে ক্রেষ্টও তুলে দেয়া হয়।

স্মৃতিচারণ অনুষ্ঠানটির একদিকে ছিল আবেগ, আনন্দ আর অপরদিকে নষ্টালজিয়ায় ভরা। স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে সবাই ফিরে গিয়েছিল জীবনের সবছেয়ে আনন্দঘন সময়ের সোনালী সেই দিনগুলোতে। একসাথে তারুন্যের সেই দিনগুলো কত মধুর ছিল তার বহিপ্রকাশ ঘটেছে সবার বক্তব্যে। বক্তব্য রেখেছেন ইকরাম হাসান জাহিদ, নুরউদ্দিন রাসেল, আরিফ উল্যা, ফারহানা ইয়াসমিন রিমা, মোশারেফ হোসেন, শাকিবুল আলম ভুইয়া সহ অনেকেই।

ব্যাচের গ্রুপ ছবিটাতে তিন বান্ধবীর সাথে আরো একজনের উপস্থিতি ছিল ইমুর ভিডিও কলে। যে এ অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছে। তাইতো অনুষ্ঠান চলাকালীন সে ভিডিও কল দিয়েছে সবাইকে দেখার জন্য। তার এ না থাকতে পারাটা সত্যিই ব্যথিত করেছে সবাইকে
বিভিন্ন পরিস্থিতির কারণে সে অংশগ্রহণ করতে পারে নি। পরিস্থিতির কাছে হেরে গেছে তার চাওয়াটা। সে হচ্ছে মেরিনা। মেরিনা ঢাকায় থাকে, তার অদম্য ইচ্ছে থাকা সত্বেও সে আসতে পারেনি।

ভবিষ্যতে আরো সুন্দর ও বৃহৎ আয়োজনের অঙ্গিকার ও প্রত্যয় ব্যাক্ত করে রাতের ডিনার ও এই সুন্দর আয়োজনটির উদ্যোগতাদের ধন্যবাদের মাধ্যেমেই শেষ হয় ১৯৯৭ ব্যাচের পুনর্মিলনী

বিশেষ ধন্যবাদ দিচ্ছি বন্ধুদের ওরা দিনের পর দিন, নিজ কর্তব্য কর্ম থেকে বেরিয়ে এসে মিটিং করেছে, কিভাবে এ অনুষ্ঠান কে সফল করা যায়। সার্থক ওরা পেরেছে, সফল সুন্দর ও আনন্দময় অনুষ্ঠান উপহার দিতে। অনুষ্ঠানে সংগীত সন্ধ্যারও আয়োজন ছিল। এ এক অন্য রকম প্রাপ্তি। এ আনন্দ সীমাহীন, প্রকাশের ভাষা ও হয়তো বাকরুদ্ধ। আমি যতদুর জানি আরো কয়েক বছর আগেও আমাদের সিনিয়রেরা এ আয়েজন করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু ওনারা পারেননি সফলতার দ্বার প্রান্তে পৌঁছাতে। সকলের ঐকান্তিক প্রচেষ্টা থাকলে অনেক কিছুই সম্ভব সেটা ৯৭ ব্যাচের এরা পথ দেখিয়েছে। সেই পথকে সামনের দিকে এগিয়ে নেয়ার দায়িত্ব অন্যদের। বিদায় বেলায় সকলের ভারাক্রান্ত হৃদয়ে যে যার কাছ থেকে বিদায় নিয়েছে।

সফল অনুষ্ঠান শেষের মূল্যায়ন হচ্ছে- আমরা পেরেছি, আনন্দের এক মহা সমুদ্র তৈরী করতে। ৯৭ -২০১৭, বিশাল একটা বিরতি ! এই বিরতিটাকে টেনে একই সুতোয় বাঁধতে আমরা সফল হয়েছি। জি কে একাডেমির প্রথম পুনর্মিলন।

ব্যাচের একজন তামান্না ফেরদৌস নিহা নীধি। তার মন্তব্য : ২০ বছর পর সে-ই অনুভুতি। সেই স্কুল জীবনের উচ্ছ্বাস। কয়েক ঘণ্টার জন্য সব ব্যস্ততা ও দায়ত্বশীলতা থেকে বেরিয়ে মনে হয়েছিল ছাত্রজীবনে ফিরে গেছি। আমাদের ব্যাচের এই আয়োজন থেকে উৎসাহিত হয়ে আশা করব আগামীতে বাউরিয়া জি কে একাডেমীর অন্যান্য ভাইবোনেরা সবাই মিলিত হয়ে বৃহৎ পরিসরে আরো বড় আয়োজনের চেষ্ঠা করবে।

সেই প্রত্যাশাই থাকল।


এখানে খুজুন


আরও পড়ুন