আজ রবিবার, ২৪ জুন ২০১৮ ইং, ১০ আষাঢ় ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



স্মৃতির মোহনায় প্রাণের মিলন ।। কলেজিয়েট স্কুলের ১৮০ বছর পূর্তিতে বর্ণাঢ্য আয়োজন

Published on 24 December 2016 | 4: 53 am

চট্টগ্রাম কলেজিয়েট স্কুল শতাব্দী প্রাচীন, বাংলাদেশ তথা উপমহাদেশের এক আলোচিত মননশীল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। বারো আউলিয়ার পুণ্যতীর্থ চট্টগ্রামের বুকে কালের এক নীরব সাক্ষী। জ্ঞান, মেধা, প্রজ্ঞাচর্চার এই মহৎ কেন্দ্র যুগ যুগ ধরে শুধুমাত্র আমাদের জনপদে শিক্ষার আলো জ্বালায়নি, এই জ্ঞানবৃক্ষ প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার সাথে সাথে সংস্কৃতি, সামাজিক, নৈতিক কর্তব্যবোধ, মুক্ত জ্ঞানচর্চাকে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মের কাছে নিয়ে গেছে।

শিক্ষাক্ষেত্রে ঐতিহ্যের ধারকবাহক কলেজিয়েট স্কুল শুধুমাত্র ডিগ্রি অর্জনের কেন্দ্র হিসেবে বিবেচিত হয়নি, এই স্কুল সার্বিক উৎকর্ষময় ভূমিকার জন্য মাথা উঁচু করে থেকেছে। নিজের দীপ্তিময় ভূমিকার জন্য কলেজিয়েট স্কুল তাই আজও প্রথম দিককার মতো মেধাবী কিশোরের সাম্রাজ্য। নিসর্গ শোভিত ঐতিহ্যবাহী এ শিক্ষায়তনের জন্ম ১৮৩৬ সালে। আপন মহিমায় হাজারও আনন্দবেদনার স্মৃতি নিয়ে সগৌরবে দাঁড়িয়ে আছে স্কুলটি।

কলেজিয়েট স্কুলের ১৮০ বছর পূর্তির ঐতিহাসিক মুহূর্তকে স্মরণীয় করে রাখতে, জীবনের স্মৃতিময়, প্রাণবন্ত সেই সোনালি দিনগুলোকে ফিরে পাওয়া, ফিরে দেখার প্রত্যাশায় স্কুলটির প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের সংগঠন চট্টগ্রাম কলেজিয়েটস তিনদিনব্যাপী এক মিলনমেলার আয়োজন করেছে। গতকাল শুক্রবার স্কুলের সাবেক ও বর্তমান ছাত্রদের সম্মিলনে আয়োজিত বর্ণাঢ্য র‌্যালির মধ্য দিয়ে ঊৎসবের সূচনা হয়।

দৈনিক আজাদী সম্পাদক ও চট্টগ্রাম কলেজিয়েটসের সভাপতি এম এ মালেকের নেতৃত্বে অশীতিপর বৃদ্ধ থেকে শুরু করে সদ্য প্রাক্তন হাজারও ছাত্রের প্রাণের মেলায় পরিণত হয় র‌্যালিটি। এ যেন স্মৃতির মোহনায় প্রাণের মিলন। এসময় ‘সবার সেরা কলেজিয়েট কলেজিয়েট’ োগানে মুখর হয়ে ওঠে চারদিক। প্রাক্তন ছাত্ররা মোবাইল ফোনে সেলফি তোলা ও ভিডিও ধারণে মেতে ওঠেন। রংবেরঙের ফেস্টুন, মুখোশ, চিত্রকর্ম, ডিজিটাল ব্যানার, জাতীয় পতাকা শোভিত হয়ে ব্যান্ডের তালে, ঢোলের বোলে মাথায় প্রাণপ্রিয় লালসবুজ পতাকা ধারণ করে মিলনের স্মারক টিশার্ট পরিহিত সাবেক ও বর্তমান ছাত্ররা যখন নেচেগেয়ে নগর প্রদক্ষিণ করছিলেন, তাদের চোখেমুখে শোভা পাচ্ছিল ইতিহাসের অংশীদার হওয়ার দৃপ্ত অহংকার।

শোভাযাত্রায় আরো অংশ নেন ১৮০ বছর পূর্তি ও পুনর্মিলন উদযাপন পরিষদের আহ্বায়ক আমীর হুমায়ুন মাহমুদ চৌধুরী, চট্টগ্রাম কলেজিয়েটসের সাংগঠনিক সম্পাদক ও শোভাযাত্রা উপকমিটির আহ্বায়ক আশরাফুল আলম হিরণ, প্রচার সম্প?াদক আবুল হাসনাত মো. বেলাল, সৈয়দ উমর ফারুক, দ্বৈপায়ন পাল, সুমন চক্রবর্তী, দেবাশীষ চক্রবর্তী, লায়ন জাহাঙ্গীর মিঞা, আলোকচিত্রী মউদুদুল আলম প্রমুখ।

রাজনীতি, অর্থনীতি কিংবা সমাজনীতিতে যারা অবদান রেখেছেন, এখনো তাদের অমিয় ফল্গুধারায় চট্টগ্রাম তথা দেশকে পরিচিতি এনে দিচ্ছেন, তাদের কৃতিত্বের বীজটি রোপিত হয়েছিল কলেজিয়েট স্কুলে। নোবেল শান্তি পুরস্কার বিজয়ী ড. মুহম্মদ ইউনূস, নিখিল ভারত কংগ্রেস সভাপতি ও কলকাতার পরপর তিনবার নির্বাচিত মেয়র দেশপ্রিয় যতীন্দ্র মোহন সেন, কবি নবীনচন্দ্র সেন, কথাসাহিত্যিক হুমায়ুন আহমেদ ও ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল, বিজ্ঞানী ড. জামাল নজরুল ইসলাম ও আবদুল্লাহ আল মুতি, নাট্যকার আতাউর রহমান, সাবেক মন্ত্রী ডা. আফছারুল আমীন, দৈনিক আজাদী সম্পাদক এম এ মালেক, বিশিষ্ট নাট্যকার ও অভিনেতা আবুল হায়াত, গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, সাবেক মন্ত্রী মোরশেদ খান ও আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, আন্তর্জাতিক দাবাড়ু গ্র্যান্ড মাস্টার নিয়াজ মোরশেদ, সাবেক জাতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু, সাবেক জাতীয় ফুটবলার আশিষ ভদ্র, আবৃত্তিকার কাজী আরিফসহ কলেজিয়েট স্কুলের কৃতী শিক্ষার্থীদের অনেকেই আজ দেশে, দেশের বাইরে তাদের মেধা ও শ্রমের বিনিময়ে নিজ নিজ সৃষ্টির মাধ্যমে এ শহরের, এ দেশের ইতিহাসকে সমৃদ্ধ করে চলেছেন।

কলেজিয়েট স্কুলের ১৮০ বছর পূর্তি উৎসব নিয়ে স্কুলটির প্রাক্তন ও বর্তমান ছাত্রদের মধ্যে বইছে আনন্দধারা। গতকাল র‌্যালির নির্ধারিত সময় বিকেল ৩টার আগেই সবাই এসে একাকার হয়ে গিয়েছিলেন। একেক ব্যাচের ছাত্র অনেক দিন পর প্রিয় বন্ধুকে পেয়ে স্থানকাল ভুলে আনন্দে মেতে উঠেছিলেন স্কুলের সেই দিনগুলোর মতো। র‌্যালির পর ১৮০ বছর পূর্তি উপলক্ষে অধ্যয়নরত ছাত্রদের অংশগ্রহণে আন্তঃশ্রেণী প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। এছাড়া কলেজিয়েটস কল্যাণ ট্রাস্টের পক্ষ থেকে স্কুলে অধ্যয়নরত মেধাবী অথচ দরিদ্র ৪০ শিক্ষার্থীকে বৃত্তি প্রদান করা হয়। এছাড়া ছিল কিটস বিতরণ ও আলোচনা সভা। সন্ধ্যায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশ নেয় স্কুলের প্রাক্তন ছাত্রদের ব্যান্ড আগস্ট, রেকর্ডস ও রায়হান অ্যান্ড ফ্রেন্ডস।

আজ ২৪ ডিসেম্বর মূল অনুষ্ঠান উদ্বোধন হবে। অনুষ্ঠানে সকাল ১০টা থেকে থাকবে সৌহার্দ্য বিনিময়, উদ্বোধনী অনুষ্ঠান, পতাকা উত্তোলন, জাতীয় সংগীত, পুষ্পস্তবক অর্পণ ও ক্রেস্ট প্রদান। সকাল ১০টায় উৎসব উদ্বোধন করবেন প্রাক্তন ছাত্র নোবেলজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূস। তিনি উপস্থাপন করবেন ‘সামাজিক ব্যবসায়প্রেক্ষাপট : বিশ্ব ও বাংলাদেশ’ শীর্ষক প্রবন্ধ। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন দৈনিক আজাদী সম্পাদক এম এ মালেক। সন্ধ্যা ৬টায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করবেন অনিরুদ্ধ সেনগুপ্ত, দিনাত জাহান মুন্নী, ব্যান্ডদল মাইলস্‌? ও অর্থহীন।

আগামীকাল রোববার সন্ধ্যা ৬টায় সমাপনী বক্তব্য দেবেন কলেজিয়েট স্কুলের প্রাক্তন ছাত্র, গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় কলেজিয়েট ট্রাস্ট প্রসঙ্গে আলোচনায় সভাপতিত্ব করবেন চৌধুরী মোহাম্মদ মোহসীন। সন্ধ্যা ৭টায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন হৈমন্তী রক্ষিত মান, কৌতুক শিল্পী আরমান ও ব্যান্ডদল সোলস।

প্রসঙ্গত, ১৯৮৪ সালে প্রাক্তন ছাত্রদের সংগঠন কলেজিয়েটস গঠনের পর ১৯৯০ সাল থেকে ধারাবাহিকভাবে পুনর্মিলনীর আয়োজন করে আসছে তারা। আনন্দবেদনার ফেলে আসা স্মৃতির সাথে আজকের ভাবনাণ্ডসব মিলিয়ে এবারের ১৮০ বছর পূর্তি ও পুনর্মিলন উৎসবের আয়োজন। ২০১১ সালে সফলতার সঙ্গে তিনদিনব্যাপী ১৭৫ বছর পূর্তি উৎসব পালন করা হয়।


এখানে খুজুন


আরও পড়ুন