আজ শনিবার, ২৩ জুন ২০১৮ ইং, ০৯ আষাঢ় ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



ডায়াবেটিস রোগীর কাঁধে ব্যথা

Published on 04 December 2016 | 3: 17 am

ডায়াবেটিস রোগীদের বেশির ভাগই কাঁধের ব্যথায় ভুগে থাকেন- যার মূল কারণ অ্যাডহেসিভ ক্যাপসুলাইটিস যা পরে কাঁধের জয়েন্টকে শক্ত করে ফেলে।

ফলে ক্রমান্বয়ে রোগী হাত ওপরে উঠাতে পারে না, পিঠের দিকে নিতে পারে না, জামা-কাপড় পরতে পারে না- এমনকি মাথা আঁচড়াতেও পারে না। এই অবস্থাকে মেডিকেল পরিভাষায় ফ্রোজেন সোল্ডার বলা হয়।
কারণ

এটি অনেকগুলো কারণে হতে পারে। যেমন-

(১) হাত দিয়ে ভারি কিছু উঠাতে গিয়ে একটু ব্যথা পেয়েছে কিন্তু অতটা গুরুত্ব দেয়া হয়নি। পরে দেখা যাচ্ছে ক্রমান্বয়ে কাঁধের ব্যথা বাড়ছে।

(২) রোগীর সারভাইক্যাল স্পনডাইলোসিস বা ঘাড়ের ক্ষয় রোগ আছে যার ফলে ঘাড় থেকে হাতে ব্যথা চলে আসে এবং এই ব্যথার কারণে রোগী হাতের নড়াচড়া কমিয়ে দেয় এবং ক্রমান্বয়ে জয়েন্টটি শক্ত হয়ে যায়।

(৩) দেখা যায় ভ্রমণের সময় বাসে কিংবা গাড়িতে যাত্রাকালীন এক বড় ধরনের ব্রেক করা হলে যাত্রী তার ব্যক্তিগত সাপোর্টের জন্য হাত দিয়ে শক্ত করে গাড়ির হাতল ধরে থাকে এবং ব্যথা পায় যা পরে কাঁধে ব্যথার কারণ হয়ে থাকে।

(৪) বয়স চল্লিশের উপরস্থলে যেমন আমাদের ডিজেনারেটিভ প্রবলেম শুরু হয় তেমনি জয়েন্টের অভ্যন্তরীণ সাইনোভিয়াল ফ্লুইড কমে যেতে থাকে। তার ফলে কাঁধে ব্যথা হতে পারে।

করণীয়

ডায়াবেটিস আক্রান্ত ব্যক্তিদের ব্যথানাশক ওষুধ যথাসম্ভব পরিহার করা উচিত। মাংসপেশি রিলাক্স করার জন্য মাসল রিলাক্সেন জাতীয় ওষুধের প্রয়োজন পড়ে।

পাশাপাশি রোগীর সমস্যা সমাধানে প্রয়োজন সঠিক ও সময়োপযোগী ফিজিওথেরাপি চিকিৎসা। এই রোগটি সঠিক ভাবে চিকিৎসা না হলে রোগীর কাঁধের মাংসপেশি ক্রমান্বয়ে শুকিয়ে যায়, দুর্বল হয়ে যায় এবং কিছু মাংসপেশি শক্ত হয়ে যায়, ফলে এমন সময় রোগী হাত উঠাতেই পারে না।

এই রোগের চিকিৎসায় কিছু ইলেকট্রো থেরাপিউটিক এজেন্ট যেমন- আল্ট্রাসাউন্ড থেরাপি, মাইক্রোওয়েভ ডায়াথেরাপি ও ম্যানুয়াল থেরাপির মধ্যে স্নোল্ডার মোবিলাইজেশন এক্সারসাইজ ও ম্যানুপুলেশন থেরাপি খুবই উপকারী। পাশাপাশি রোগীকে কিছু এক্সারসাইজ করতে হয়। যেমন-

১। পেনডুলাম এক্সারসাইজ

২। ওয়াল ক্লাম্বিং এক্সারসাইজ

৩। স্নোডার রোটেশন এক্সারসাইজ ইত্যাদি


এখানে খুজুন


আরও পড়ুন