আজ শনিবার, ২৩ জুন ২০১৮ ইং, ০৯ আষাঢ় ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



কর্ণফুলী টানেল নির্মাণ সাইট পরিদর্শন করলেন সেতুমন্ত্রী ।। ভূমি অধিগ্রহণ সংক্রান্ত অভিযোগ দ্রুত নিষ্পত্তির নির্দেশ

Published on 14 November 2016 | 3: 05 am

নির্ধারিত সময়েই কর্ণফুলীর তলদেশে টানেল নির্মাণের কাজ শেষ হবে। সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের গতকাল সকালে পতেঙ্গার ওয়েস্ট পয়েন্টে কর্ণফুলী টানেল নির্মাণের সাইট পরিদর্শনে গিয়ে এ কথা বলেছেন। এ সময় মন্ত্রী স্থানীয় বাসিন্দাদের সাথে অনানুষ্ঠানিকভাবে মতবিনিময় করেন। স্থানীয় বাসিন্দারা ভূমি অধিগ্রহণ সংক্রান্ত কিছু অভিযোগ উত্থাপন করলে মন্ত্রী দ্রুততম সময়ে তা নিরসন করার জন্য জেলা প্রশাসন ও প্রকল্প কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেন। এসময় কর্ণফুলী টানেল নির্মাণ প্রকল্পের পরিচালক প্রকৌশলী ইফতেকার কবিরসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী এবং চীনের রাষ্ট্রপতি যৌথভাবে এ প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তও স্থাপন করেছেন। এর মধ্যদিয়ে কর্ণফুলী টানেলের নির্মাণ কাজের সূচনা হয়েছে। জিটুজি ভিত্তিতে চীন সরকারের অর্থায়নে কর্ণফুলী টানেলের নির্মাণকাজ যথাসময়ে শেষ করার লক্ষ্যে কাজ করছে সেতু বিভাগ। ইতোমধ্যে টানেল নির্মাণের লক্ষ্যে পরামর্শক নিয়োগের চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে।

তিনি বলেন, প্রায় সাড়ে আট হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে কর্ণফুলী টানেল হবে প্রায় সাড়ে তিন কিলোমিটার দীর্ঘ। দু’প্রান্তের সংযোগ সড়ক এবং একটি এক কিলোমিটার দীর্ঘ ফ্লাইওভারসহ প্রকল্পের মোট দৈর্ঘ্য প্রায় নয় কিলোমিটার। শিল্ড ড্রাইভেন মেথডে নির্মিতব্য টানেলটি হবে দুটি টিউবে দুইলেন করে চারলেনের।

টানেলটি নির্মিত হলে চীনের সাংহাইয়ের মতো চট্টগ্রাম হবে ওয়ান সিটি টু টাউন। এতে ব্যবসাবাণিজ্য সম্প্রসারণ ও অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের গতিশীলতা বাড়বে। নদীর ওপারে ইপিজেড স্থাপনের ফলে কর্মসংস্থান বৃদ্ধির পাশাপাশি নগরায়নের নতুন দিগন্ত উন্মোচিত হবে। এশিয়ান হাইওয়ের সাথে সংযোগসহ প্রস্তাবিত মীরসরাইকক্সবাজার মেরিন ড্রাইভ, প্রস্তাবিত ঢাকাচট্টগ্রাম এক্সপ্রেসওয়ে এবং প্রস্তাবিত চট্টগ্রামকক্সবাজার মহাসড়ক চারলেনে প্রকল্পের সাথে টানেলটি যুক্ত হবে বলেও মন্ত্রী উল্লেখ করেন।


এখানে খুজুন


আরও পড়ুন