আজ সোমবার, ১৮ জুন ২০১৮ ইং, ০৪ আষাঢ় ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



অদ্ভুত আবিস্কার ‘চাকা’

Published on 07 October 2016 | 10: 10 am

* কে এম আজিজ উল্যা *

আদি মানুষ যথা ইচ্ছা যেত হেটে হেটে
প্রয়োজনে দৌড়ে পালাত পড়লে সংকটে।
মাছ-মাংস-তরকারী পরতনা কেটে কুটে খেতে
দা’ও আবিস্কারে, মুক্তি পেল, সেই সমস্যা হতে।

গুহায়-গর্তে বাস করত, থাকতনা বস্ত্র পরিধানে
গো-মহিষের চামড়া জড়ায়ে বের হত, খাদ্যের সন্ধানে।
কাঁচা-পঁচা খাদ্য খেয়ে কাটত তাদের দিন,
আগুন আবিস্কার হওয়ায় সবার আসিল সুদিন।

আগুন দ্বারা রান্না হয়, হতে থাকে শীত নিবারণ,
আগুন দ্বারা ‘বয়লার’ জ্বলে, ইঞ্জিন চলে, হচ্ছে উৎপাদন।
সেকালে ধূলা-বালি-কাদা পায়ে, যেতে হত ঘরে
এখন লাগেনা কাদা-পেঁক, জুতা আবিস্কারের পড়ে।

এ পর্যন্ত যত আবিস্কার হল, সবই মানব কল্যানের জন্য
আবিস্কার করে বিজ্ঞানীরা হয়ে রয়েছেন ধন্য।
আমি বিস্ময়কর এক আবিস্কারের কথা বলতে চাই,
সেই বস্তুটির উপর ভর করে যথা ইচ্ছা যাই।

বস্তুটি হল ‘চাকা’
দোকানে আছে মজুদ রাখা
অনেকগুলি চাকার উপর বানায়েছে অনেকগুলি ঘর,
সেই ঘরে বসে যাই চাঁটগাঁও হতে ঢাকার শহর।
যাত্রী ভাই-বোন বসে বসে কিচ্ছা-কাহিনী বলে,
ট্রেন-বাস-ট্র্রাক সবই তাদের নির্দিষ্ট গতিতে চলে।

বিশ্বের বুকে প্রথম আবিস্কার, কোন যানবাহন?
মনে হয় ঘোড়ার গাড়ি, যাতে জমিদারেরাই করতেন ভ্রমন।
বর্তমানে সাইকেল-রিক্সা-টেক্সি-হুন্ডা হাজার রকমের গাড়ী
রাস্তায় চলছে, যাত্রী পার করছে, চাকায় ভর করি।

চাকার কারনে বিশ্ব জুড়ে নির্মিত হচ্ছে পাকা রাস্তা
সেই দেশ উন্নত, যে দেশে চাকা চলার আছে সুব্যবস্থা।
বাংলাদেশেও বড় বড় রাস্তাগুলি সব পাক্কা,
কিন্তু গাড়ি গর্তে পড়ি, খাচ্ছে ভীষন ধাক্কা।
যাত্রীরা একের উপর অন্যেরা হুড়-মুড় করে পড়ে,
অনেকে বেঁচে গেলেও অভাগা, কেউনা কেউত মরে।

বিজ্ঞ বন্ধুরা, এ মৃত্যু কি চাকার দোষে, না রাস্তার দোষে?
আপনারা যাহাই বলেন, আমি বলব, বিধাতার রুদ্র রোষে।
চাকা নির্দোষ। চাকার কাছে সারা বিশ্ব এখন ঋণী
দশ দিনের পথ দশ ঘন্টায় যাই, তাইত লোকে নিচ্ছে চাকা কিনি।
ক্ষুদ্র অথচ অতি মূল্যবান যন্ত্রটির আবিস্কর্তা যে,
চাকারা বিশ্ব জয় করেছে, তাই উদ্ভাবনকারী, নামী-দামী সে।
তাঁহার নামটি আমার জানা অত্যন্ত দরকার,
পূর্ণ একটি বৃত্ত এঁকে কেমনে করলেন চাকা আবিস্কার!

‘চাকা’ কষ্ট করছে, যাত্রী অফিসে পৌছাচ্ছে, সময় মত,
কর্তা সাহেব বসে বসে অফিসে যাবেন, এই তাঁর ব্রত।
আমাদের হৃদয়টি যদি চাকার মত হত
নিজে কষ্ট করতাম, দূর করতাম অন্যের দুঃখ যত।
কিন্তু – আত্ম স্বার্থ সিদ্ধির জন্য মানুষ করছে মানুষ খুন
তাতে – ঐ পরিবার ধ্বংস হচ্ছে, দেশের ক্ষতি হচ্ছে শতগুন।
পরহিতে ‘চাকার’ জীবন আপন হিতে আমি
চাকার একটি হৃদয় আমায় দাওনা অন্তর্যামী।।


এখানে খুজুন


আরও পড়ুন