আজ শনিবার, ২৩ জুন ২০১৮ ইং, ০৯ আষাঢ় ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



ঢাকায় স্কুলগামী ৭৭ শতাংশ শিশু পর্নোগ্রাফি দেখে

Published on 02 October 2016 | 2: 59 am

ঢাকায় স্কুলগামী শিশুদের মধ্যে প্রায় ৭৭ শতাংশ পর্নোগ্রাফি দেখে। আর এ সব পর্ণোগ্রাফিগুলোতে যাদের ভিডিও দেখানো হচ্ছে তাদের বয়স ১৮ এর কম। মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের এক বিশ্লেষণে এ সব তথ্য এসেছে।

সংগঠনের গবেষণায় আরো দেখা গেছে,বর্তমানে চারটি পদ্ধতিতে পর্নোগ্রাফি তৈরি করা হচ্ছে। এর মধ্যে বাণিজ্যিকভাবে তৈরি পর্নোগ্রাফির তুলনায় ব্যক্তিগত সম্পর্ককে ঘিরে তৈরি পর্নোগ্রাফি এ সব শিশুরা বেশি দেখছে। আর এ সব ভিডিওগুলোতে দেখা যাচ্ছে ১৮ বছরের কম বয়সী স্কুল কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের।

জাতীয় প্রেসক্লাবে শনিবার ‘বাংলাদেশ শিশু পরিস্থিতি, সংবাদপত্র বিশ্লেষণ ও বিশেষজ্ঞ অভিমত অনুষ্ঠানে এসব তথ্য প্রকাশ করে সংগঠনটি। সংবাদপত্র বিশ্লেষণ ও বিশেষজ্ঞ অভিমত অনুষ্ঠানটির আয়োজন করে মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন।

সংস্থাটির শিশু সুরক্ষা কার্যক্রমের কর্মসূচি ব্যবস্থাপক আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, আমরা রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন স্কুলের ৫০০ জন শিক্ষার্থীর ওপর জরিপ চালিয়ে দেখেছি এর মধ্যে ৭৭ শতাংশ শিশু নিয়মিত পর্নোগ্রাফি দেখছে। এ সব পর্নোগ্রাফি দেখার কারণের তারা একটি বিকৃত যৌন শিক্ষার মধ্য দিয়ে বেড়ে উঠছে।

তিনি বলেন, বিভিন্ন দেশে পর্নোগ্রাফির সঙ্গে সম্পর্কিত ২০০ শব্দের ওপর সংরক্ষণ দেওয়া আছে। এর ফলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অনুমোদন ছাড়া ওসব পর্ন সাইটে ঢোকা যায় না। তাই বাংলাদেশের এ সমস্যার সমাধানের জন্য এ ধরনের উদ্যোগ নেওয়া জরুরি।

তিনি আরো বলেন, দেশে বর্তমানে জাতীয় পরিচয়পত্র ছাড়া সিম নিবন্ধন করা যায় না। তাহলে ১৮ বছরের নিচে কোনো শিশুকে ফোন ব্যবহার করতে হলে তার অভিভাবকের নামে নিবন্ধন করে সিম ব্যবহার করতে হবে। অভিভাবকেরা শিশুদের দামি মুঠোফোন, ট্যাব ও সেগুলোয় ইন্টারনেট সংযোগ দিচ্ছেন, কিন্তু তারা কি কাজে এগুলো ব্যবহার করছে সে সম্পর্কে খোঁজখবর করছেন না। এ দিকে নজর দেওয়া জরুরি।

অভিমত অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক শাহীন আনাম ও শিশু সুরক্ষা কার্যক্রমের কর্মসূচি উপ-ব্যবস্থাপক শাহনাজ রহমান।


এখানে খুজুন


আরও পড়ুন