আজ শনিবার, ২৩ জুন ২০১৮ ইং, ০৯ আষাঢ় ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



সৈয়দ হকের মৃত্যু বাংলা সাহিত্যের অপূরণীয় ক্ষতি : রাষ্ট্রপতি

Published on 28 September 2016 | 3: 08 am

সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হকের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও জাতীয় সংসদের স্পিকার ডা. শিরিন শারমীন চৌধুরী। লেখকের মৃত্যুর পর মঙ্গলবার বিকালে এক শোকবার্তায় রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘সৈয়দ শামসুল হক বাংলা সাহিত্যের এক উজ্জ্বল নক্ষত্র। সাহিত্যের সব ক্ষেত্রে সৈয়দ হকের নন্দিত বিচরণ বাংলার সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক অঙ্গনে তাকে অমর করে রাখবে।’

তার মৃত্যু বাংলা সাহিত্যের জন্য অপূরণীয় ক্ষতি মন্তব্য করে রাষ্ট্রপতি তার শোকবার্তায় বলেন, স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সৈনিক সৈয়দ শামসুল হকের শক্তিশালী লেখনী জাতিকে চিরদিন পথ দেখাবে।

কবির আত্মার মাগফেরাত কামনার পাশাপাশি শোক সন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানান রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও জাতীয় সংসদের স্পিকার।

চার মাস আগে লন্ডনে চিকিৎসা করাতে গিয়ে তার ফুসফুসের ক্যান্সার ধরা পড়ে। সেখানকার চিকিৎসকরা তার জীবনসীমা বেঁধে দেন। দেশে ফিরে গত ১ সেপ্টেম্বর জ্বর নিয়ে ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি।

হাসপাতালের কেবিনে শুয়ে ‘শেষ যোদ্ধা’ নাটক রচনা করছিলেন সৈয়দ শামসুল হক। রোগ জর্জরিত শেষ দিনগুলোতে কেবিনের বেডে শুয়ে তিনি বলতেন আর সে কথা লিখে নিচ্ছেলেন তার স্ত্রী আনোয়ারা সৈয়দ হক। ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সৈয়দ শামসুল হকের শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় গত সোমবার তাকে আইসিইউতে স্থানান্তর করা হয়।

১৯৩৫ সালের ২৭ ডিসেম্বর জন্ম নেওয়া সৈয়দ শামসুল হক কবিতা, উপন্যাস, নাটক, ছোটগল্পসহ সাহিত্যের সব শাখায় সফল, দীপ্ত পদচারণা করেছেন। এ যোগ্যতা তাকে বাংলা সাহিত্যের জীবিত কিংবদন্তিতে পরিণত করে। এনে দেয় ‘সব্যসাচী লেখক’-এর মর্যাদা। সাহিত‌্যের সব ক্ষেত্রে সদর্প বিচরণকারী সৈয়দ হকের বয়স হয়েছিল ৮১ বছর।


এখানে খুজুন


আরও পড়ুন