আজ শনিবার, ২৩ জুন ২০১৮ ইং, ০৯ আষাঢ় ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



চবির অরক্ষিত ঝর্ণা কেড়ে নিল দুটি প্রস্ফুটিত গোলাপ – ‘আব্দুর রহিম রাহাত’

Published on 13 October 2015 | 2: 19 am

১)
শোকের পাতায় যুক্ত হল আরো দুটি নাম। সন্দ্বীপের মাটিতে এক মাসে পাঁচ পাঁচটি তাজা প্রাণের অন্তর্ধান! এ শোক সইব কিভাবে? নাদিয়া হত্যাকান্ড, কুরবানির হাটে জাহাঙ্গীর-কবির খুন, সোমবার চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে এক সাথে সন্দ্বীপের দুইজন ছাত্র পাভেল ও রিফাতের অপমৃত্যু হৃদয় কোণে চরম ভাবে দাগ কেটে দিয়েছে।

সত্যি কথা বলতে কি, চলতি মাসটি আমাদের জন্য অঘোষিত ভাবে শোকের বন্যা বয়ে নিয়ে এসেছে। অনলাইন নিউজ গুলো দেখলে সেখানে পাওয়া যায় না সন্দ্বীপের সুখের কোন খবর! জাতীয় দৈনিক গুলোতে এখন প্রায় প্রতিদিনই আমাদের খবর হয় সত্য, তবে তা হয় অযাচিত আর দুষ্কর্মের খবর!
সর্বশেষ কোরবানির হাটে নিহত নিরহ দু’জন পথচারি রক্তের দাগ শুকাতে না শুকাতে আজ আবার সূচনা হলো শোকের আরেকটি নতুন অধ্যায়।

২)
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের কথিত মায়াবী ঝর্ণা।
যাহ্! তুই নিষিদ্ধ! তুই কথা কস নে! বিনোদনের আবরনে তুই ভয়ংকর এক স্রোতের নাম। উজ্জল ভবিষ্যৎ গুলো তোর ভয়াল থাবায় মিশে যাচ্ছে তোর রাক্ষুষী স্রোতের সাথে।
অপমৃত্যু নামক কলংকের পাতায় তুই বারবার নাম লেখাচ্ছিস।

আচ্ছা, তোর আবিষ্ককারের পর থেকে কতটি মূল্যবান তাজা প্রাণ গ্রাস করেছিস সে হিসেব কি একটু দিবি?

তোর সৌন্দয্যের পরশ দিয়ে আগামীর কর্ণধারদের তোর প্রেমে পড়িয়ে বিষাক্ত কাল নাগিনীর ন্যায় আর কত আচরণ করবি? তোর রূপের অন্তরালে ভয়ংকর দৃশ্যটি আজ আবার প্রকাশ হয়ে গেল বুঝি?

৩)
নাদিয়া হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত থাকার দায়ে ফকির এবং তার সহযোগিদের গ্রেফতার করা হল। জোড়া খুনের জন্য মিশু ও তার সহযোগিদের গ্রেফতার করা হল।
কিন্তু সোমবার চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে দুটি গোলাপের এই অপমৃত্যুর দায় ভার কে নিবে?

চবি উপাচার্য কি দিতে পারবেন আগামী দিনের কর্ণধার এ দুটি মেধাবী ছাত্রের মূল্যবানের দুটি প্রাণের মূল্য?

যথাযথ রক্ষাণাবেক্ষণের অভাব ও অরক্ষিত ঝর্ণাটি এ বর্ষা মৌসমে শিক্ষার্থীদের পদচারণার জন্য কতটুকু নিরাপত্তা বেষ্টনি দিয়ে রেখেছিল চবি প্রশাসনের কাছ থেকে সে প্রশ্নের কি উত্তর মিলবে?

অথবা
নিষেধাজ্ঞা জারির নামে কোন বিলবোর্ড ঝুলিয়ে রাখলেও তার কতটুকু পর্যবেক্ষণ চবির প্রশাসনের ছিল সেটা আজ বড় প্রশ্ন!

এক এক করে আর কতটি মেধাবী প্রাণ চবির ভয়াল ঝর্ণা গিলে ফেললে পড়ে চবির প্রশাসনের ঘুম ভাঙবে?-সে প্রশ্নের জবাব চাই।

সবশেষে মর্মান্তিকভাবে নিহত দু’জন মেধাবী ছাত্রের কফিনের সামনে দাঁড়িয়ে চবির প্রশাসনকে বলতে চাই–
আর কোন অপমৃত্যুর কারণ যাতে না হয় চবির অরক্ষিত ঝর্ণাটি — অবিলম্বে সে ব্যবস্থা গ্রহণ করুন।


এখানে খুজুন


আরও পড়ুন