আজ শনিবার, ২১ জুলাই ২০১৮ ইং, ০৬ শ্রাবণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



এইচএসবিসি’র ৯২ কোটি টাকা কর ফাঁকি

Published on 28 July 2016 | 3: 36 am

দ্য হংকং সাংহাই ব্যাংকিং করপোরেশন লিমিটেড (এইচএসবিসি) ব্যাংকের বিরুদ্ধে বিপুল অংকের কর ফাঁকির অভিযোগ পাওয়া গেছে। এক বছরে বহুজাতিক এ ব্যাংকটি সরকারের ৯২ কোটি ৫৫ লাখ ৪২ হাজার ১৮৪ টাকা কর ফাঁকি দিয়েছে। জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এনবিআরের বৃহৎ করদাতা ইউনিট (এলটিইউ) ২০১২-১৩ অর্থবছরের অডিটে এইচএসবিসির ২০১১-১২ কর বর্ষের নথি তদন্ত করে। তদন্তে রিটার্নে প্রদর্শিত মুনাফা স্থিতিপত্রের (ব্যালেন্সশিট) মূলধন ও রিজার্ভের ৫০ শতাংশের অধিক হওয়ার পরও অতিরিক্ত আয়কর পরিশোধ করেনি ব্যাংকটি। এক্ষেত্রে তথ্য গোপন করে এইচএসবিসি সরকারের প্রায় ৯২ কোটি ৫৫ লাখ ৪২ হাজার ১৮৪ টাকা ফাঁকি দিয়েছে।

আয়কর আইন ১৯৮৪-এর ধারা ১৬সি ও বাংলাদেশ ব্যাংকের নিয়ম অনুযায়ী রিটার্নে প্রদর্শিত মুনাফা মূলধন ও রিজার্ভের ৫০ শতাংশর অতিরিক্ত হলে তার উপর অতিরিক্ত আয়কর পরিশোধ করতে হয়। এছাড়া অতিরিক্ত মুনাফার উপর আয়কর আইনের ধার্য্যকৃত করের বাইরেও ১৫ শতাংশ হারে অতিরিক্ত আয়কর পরিশোধের বিধান রয়েছে। এক্ষেত্রে এইচএসবিসি বিধানটি মানেনি। বরং বিষয়টি তারা আয়কর রিটার্নে গোপন করে গেছে। এভাবে ওই বছর ব্যাংকটি ৯২ কোটি ৫৫ লাখ ৪২ হাজার ১৮৪ টাকা কম কর দিয়েছে।

এ বিষয়ে এইচএসবিসি ব্যাংকের প্রধান তথ্য কর্মকর্তা তালুকদার নোমান আনোয়ারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। তিনি বলেন, এইচএসবিসি ব্যাংক কর্তৃপক্ষ বিষয়টি নিয়ে কোনো বক্তব্য দিতে চান না।

এনবিআরের চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমান বিষয়টি নিয়ে বলেন, করপোরেট প্রতিষ্ঠানগুলোকে কর প্রদানের বিষয়ে আরো যত্নবান হতে হবে। বিশেষ করে বহুজাতিক করপোরেট প্রতিষ্ঠানগুলোকে এ বিষয়ে আরো দায়িত্বশীল হতে হবে।

তিনি বলেন, বহুজাতিক কোম্পানিগুলো এদেশের মানুষের কাছ থেকে মুনাফা করছে। সুতরাং তাদেরকে মানুষের জীবনমান উন্নয়নে সঠিকহারে কর দিতে হবে।

নজিবুর রহমান বলেন, এনবিআর দুষ্টের দমন ও শিষ্টের পালন করার নীতি নিয়েছে। কর ফাঁকিবাজ যেই হোক না কেন ছাড় দেওয়া হবে না। আয়কর আইনের আওতায় এনে তাদের বিচার করা হবে।


এখানে খুজুন


আরও পড়ুন