আজ শনিবার, ২১ জুলাই ২০১৮ ইং, ০৬ শ্রাবণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



জিকা থেকে রক্ষা করবে চট্টগ্রামের এম এ হামিদ উদ্ভাবিত HEC Mosquito Killer

Published on 21 June 2016 | 3: 22 pm

শাহাদাৎ আশরাফ :: সোনালী নিউজ :: সম্প্রতি জিকা ভাইরাসের বিষয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সতর্কতার কথা জানিয়ে এম এ হামিদ বলেন, ‘ইতোমধ্যে মশা নিধনে ইলেকট্রনিক, ইলেকট্রো-ম্যাগনেটিক ও রাসায়নিক যেসব উপকরণ-যন্ত্রপাতি আবিষ্কার করা হয়েছে তার থেকেও অত্যাধুনিক প্রযুক্তি হচ্ছে আমার উদ্ভাবিত ইলেকট্রো-কেমিক্যাল মসকিটো কিলার।’

তিনি জানান, সরকার তার উদ্ভাবিত যন্ত্রটির স্বীকৃতি দেয়ার আগে প্রায় ১৮ মাস বিশ্বের বিভিন্ন দেশে খোঁজখবর নিয়েছে। এরপর কোথাও না থাকায় যন্ত্রটিকে স্বীকৃতি দেয়া হয়েছে। পোপাদিয়ার আবদুল হাকিম মেম্বারের বাড়ির সাবেক সরকারি কর্মকর্তা হাজী শামসুল হক ও মাহমুদা খাতুনের সন্তান এম এ হামিদ ১৯৯৮ সালে হাওলা উচ্চবিদ্যালয়ের বিজ্ঞান বিভাগ থেকে মাধ্যমিক পাস করেন। ২০০০ সালে কানুনগোপাড়া স্যার আশুতোষ সরকারি কলেজ থেকে এইচএসসি, ২০০৩ সালে চট্টগ্রামের আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে টেলিযোগাযোগ বিষয়ে ডিপ্লোমা করেন তিনি। এ ছাড়া জেনারেল এডুকেশন ডেভেলপমেন্ট যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক চট্টগ্রামের একটি প্রতিষ্ঠান থেকে ডিপ্লোমা ডিগ্রি নেন এম এ হামিদ।

নিজের এ উদ্ভাবন প্রসঙ্গে এম এ হামিদ বলেন, ২০১১ সাল থেকে তিনি গবেষণা শুরু করেন। ২০১৪ সালের মাঝামাঝি পর্যন্ত গবেষণা চালিয়ে একপর্যায়ে সফল হয়েছেন। ওই বছরের ২ জুন শিল্প মন্ত্রণালয়ের প্যাটেন্ট বিভাগে আবেদন করেন তিনি। ২৪ জুন তার আবেদন গ্রহণ করা হয়। তার প্যাটেন্ট নম্বর ১৫০/২০১৪।

৩৪ বছর বয়সী এম এ হামিদ বলেন, মশা নিধনের এ যন্ত্র এবং ব্যবহৃত রাসায়নিক থেকে কোনো বিষক্রিয়া ছড়াবে না। বরং যন্ত্রটি মশাকে আকৃষ্ট করবে। যন্ত্রটির মধ্যে যে রাসায়নিক ব্যবহৃত হয়েছে দেখতে তা এক ধরনের খাদ্য। মানুষের উপস্থিতি টের পেলে যেভাবে মশা আক্রমণ করে ঠিক সেভাবে মানুষ মনে করে ওই যন্ত্রটির সংস্পর্শে চলে আসবে মশা।

এক ফুট উচ্চতা এবং ছয় ইঞ্চি প্রশস্ত (টেবিল লাইটের আকৃতি) এই যন্ত্রটিতে পাঁচ ওয়াটের একটি বৈদ্যুতিক বাল্ব থাকবে। বৈদ্যুতিক সুইচে যন্ত্রটি লাগিয়ে দিলে ২০ থেকে ৩০ মিনিটের মধ্যে মশা নিধন শুরু হয়ে যাবে। দুই হাজার বর্গফুটের মধ্যে যত মশা থাকবে সব মশা যন্ত্রের ভেতর ঢুকে যাবে। যন্ত্রটি মানবদেহের মতো মশাকে আকৃষ্ট করতে সক্ষম। ঘরে-বাইরে সব জায়গায় এ যন্ত্র ব্যবহার করা যাবে। বিদ্যুৎ ছাড়াও ব্যাটারি দিয়ে চার-পাঁচ ঘণ্টা চলবে। যন্ত্রটির ওজন ৫০০ থেকে ৬০০ গ্রাম। বিদ্যুৎ খরচ হবে সাত ওয়াট। একটি রিফিল দিয়ে (রাসায়নিক দ্রব্য) চার মাস চলবে। এর মূল্য ১০০ টাকা। একটি রিফিলসহ যন্ত্রটির এককালীন মূল্য দুই হাজার টাকা। চার মাস পরপর রিফিল পরিবর্তন করতে হবে।

এম এ হামিদ বলেন, এ যন্ত্রটির অন্যতম বৈশিষ্ট্য হচ্ছে এটি ক্ষতিকারক রাসায়নিক পদার্থযুক্ত, বিষাক্ত ধোঁয়াহীন, শব্দহীন, কয়েল ও স্প্রের মতো বায়ু দূষণ করে না, দূষণমুক্ত ও পরিবেশবান্ধব, ডিম লাইটের মতো জ্বলে, সহজে বহনযোগ্য, বিদ্যুৎসাশ্রয়ী ও স্থায়ীভাবে মশা নিধন করে। যন্ত্রটির রয়েছে এক বছরের ওয়ারেন্টি।

এম এ হামিদ জানান, এর মধ্যে চীনে গিয়ে ওই দেশের সরকারের কাছে তার প্যাটেন্ট জমা দিয়েছেন। সেখানে নিয়মিত যোগাযোগের জন্য হার্মেস সান করপোরেশন লিমিটেড নামের একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের সাথে চুক্তি করেছেন গত বছরের ১৫ মে। এরপর ভারত সরকারের কাছেও আবেদন করার প্রক্রিয়া শুরু করেছেন। নিজ উদ্ভাবিত যন্ত্র ব্যবহার করে মশকনিধন বিষয়ে ব্রাজিল ও আমেরিকান দূতাবাসের সাথে হামিদ ইন্টারনেটের মাধ্যমে যোগাযোগের চেষ্টা করছেন বলে জানান।

এম এ হামিদ দৃঢতার সাথে সোনালী নিউজকে জানান ‘আমার বিশ্বাস HEC Mosquito Killer দিয়ে জিকা ভাইরাসের বাহক এডিস মশা নিধন হবে।’ শিল্প মন্ত্রণালয়ের প্যাটেন্ট, ডিজাইন ও ট্রেডমার্ক অধিদফতরের পরীক্ষক (প্যাটেন্ট) মো: হাবিবুর রহমান বলেন, ‘উনি (হামিদ) যন্ত্রটি আবিষ্কারের কথা জানিয়ে আমাদের কাছে আবেদন করেছিলেন। এরপর আমরা যাচাই-বাছাই করে দেখেছি, মশকনিধনের অত্যাধুনিক এ যন্ত্র বিশ্বের অন্য কোথাও নেই।

ইতিমধ্যে বাজারজাত শুরু হয়েছে HEC Mosquito Killer এর বাজার জাতকরণ। গঠন করা হয়েছে First Technllogy Bd. নামের একটি কোম্পানী।

সুধী সমাবেশ ইফতার মাহফিল : রাজধানীর মতিঝিল এলাকার ফকিরাপুল, ২৯২ ইনার সার্কুলার রোডের শতাব্দী সেন্টারের ১৫ তলায়  অবস্থি  First Technllogy Bd. এর আয়োজনে সুধী সমাবেশ ও ইফতার মাহফিল গত ১৯ জুন অনুষ্ঠিত হয়।

এতে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পালি ও বুড্ডিষ্ট ষ্টাডিস এর অধ্যাপক ও বিভাগীয় চেয়ারম্যান ড. বিমান চন্দ্র বড়ুয়া, বাংলাদেশ বুড্ডিষ্ট কালচারাল এসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট  প্রফেসর রিটন কুমার বড়ুয়া, সোনালী নিউজ টুয়েন্টি ফোর ডট কম সম্পাদক শাহাদাৎ হোসেন আশরাফ, আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেডের উর্ধতন কর্মকর্তা অমল কান্তি বড়ুয়া, সেন্ট্রাল আইডিয়েল স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষক জয়া বড়ুয়া, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মো. ফেরদাউস হোসেন, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী রতন কুমার বড়ুয়া, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্যাটান্ট বিভাগের কর্মকর্তা হাবিবুর রহমান, মিংঙ্গেল লিমিটেডের নির্বাহী পরিচালক মো. মনির হোসেন, ডা. মিজানুর রহমান প্রমুখ।

(বিষাক্ত ধোঁয়া ও ক্ষতিকারক রাসায়নিক পদার্থ মুক্ত বিশ্বের সর্বাধুনিক প্রযুক্তি দ্বারা তৈরী স্বয়ংক্রীয়ভাবে মশা নিধনের একটি নতুন যন্ত্র) এর আবিষ্কারক ও First Technllogy Bd. এর পরিচালক এম এ হামিদ উপস্থিত সুধীজনদের সামনে তার নতুন প্রযুক্তি মাধ্যমে মশা নিধনের যন্ত্রের বর্ণণা দেন।

করপোরেট অফিস : First Technllogy Bd. Ltd. ২২, আতরজান জামে মসজিদ সংলগ্ন (২য় তলা), আসকার দিঘীর পাড় কোতোয়ালী, চট্টগ্রাম।


এখানে খুজুন


আরও পড়ুন