আজ বৃহঃপতিবার, ২৪ মে ২০১৮ ইং, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



এক পোশাকে সাড়ে ৬ হাজার টাকা লাভ! ।। শপিং কমপ্লেক্সের দুই দোকানকে দুই লাখ টাকা জরিমানা

Published on 21 June 2016 | 3: 41 am

ভ্রাম্যমাণ আদালতের উপস্থিতি টের পেয়ে জরিমানা এড়াতে এবার দুই ফিক্সড প্রাইসের দোকান সব কাপড়ের ‘প্রাইস ট্যাগ’ ছিড়ে ফেলেছে। তবে এতেও রক্ষা হয়নি। দোকানের কাগজ পত্র তল্লাশি করে প্রমাণ পাওয়া যায় প্রতি পোশাকেই অতিরিক্ত লাভ করছিল দুটি প্রতিষ্ঠানই। ফলে দু প্রতিষ্ঠানকেই এক লাখ টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে নগরীর ষোলশহর শপিং কমপ্লেক্স মার্কেটে। ফিক্সড প্রাইসের এই প্রতিষ্ঠান দুটি হলো জিনিমিনি ও নাদিয়া এম্পোরিয়াম।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাহমিলুর রহমান জানান, অভিযান চলাকালে জিনিমিনি নামে একটি ফিক্সড প্রাইসের দোকান আদালতের উপস্থিতি টের পেয়ে ফিক্সড প্রাইসের ট্যাগ ছিড়ে ফেলে। কিন্তু তারা কাগজ পত্র তল্লাশি করে দেখতে পান, একটি লেহেঙ্গার ক্রয়মূল্য ৪ হাজার ৭৫০ টাকা অথচ বিক্রয় মূল্য ছিল ৯ হাজার ৮৫০টাকা, আরেকটি থ্রি পিসের বিক্রয় মূল্য লিখা ছিল ১২ হাজার ৫০০ টাকা, অথচ এর ক্রয়মূল্য পাওয়া যায় ৫ হাজার ১০০ টাকা।’ তিনি আরও জানান, নাদিয়া এম্পোরিয়ামে বিপুল লাভে পণ্য বিক্রয় করতে দেখা যায়, তারাও ভ্রাম্যমাণ আদালতের উপস্থিতি টের পেয়ে সকল পোশাকের প্রাইস ট্যাগ ছিড়ে ফেলে এবং ক্রয়ের কোন কাগজ দেখাতে ব্যর্থ হয়। এজন্য দুটি প্রতিষ্ঠানকেই এক লাখ টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে। এছাড়া ইয়াং লেডি, সুমনা ফ্যাশনসহ বেশ কয়েকটি দোকানকে সতর্ক করা হয়ছে বলে জানান নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাহমিলুর রহমান।

এদিকে ষোলশহরের কর্ণফুলি মার্কেটে অতিরিক্ত মূল্য, মেয়াদোত্তীর্ণ পণ্য বিক্রি ও মূল্য তালিকা প্রদর্শন না করায় জাহাঙ্গীর স্টোরকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ফোরকান এলাহী অনুপম, রঞ্জন চন্দ্র দে ও নাঈমা ইসলাম।

অন্যদিকে আন্দরকিল্লা সাব এরিয়া বাজারে অতিরিক্ত মূল্যে পণ্য বিক্রয় করায় একটি দোকানকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাব্বির রহমান সানি, শেখ নুরুল আলম ও তাহমিনা আক্তার।

গতকাল সোমবার সকালে জেলা প্রশাসন পরিচালিত এসব ভ্রাম্যমাণ আদালতে নেতৃত্ব দেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাহমিলুর রহমান, মো. তৌহিদুল ইসলাম ও সানজিদা সুলতানা। ভ্রাম্যমাণ আদালতকে সহায়তা প্রদান করেন ক্যাব ও চট্টগ্রাম চেম্বারের প্রতিনিধি। পুলিশ ও আনসার সদস্যরা আইনশৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্ব পালন করেন।


Advertisement

আরও পড়ুন