আজ মঙ্গলবার, ২১ আগষ্ট ২০১৮ ইং, ০৬ ভাদ্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



জঙ্গিবাদ জিহাদ নয়, সন্ত্রাস : ইসলামি নেতাদের ফতোয়া

Published on 19 June 2016 | 4: 43 am

জঙ্গিবাদ কখনো জিহাদ হতে পারে না, বরং এটা সন্ত্রাসী কর্মকান্ড। দেশের এক লক্ষ মুফতি, উলামা, আইম্মার, দস্তখতসম্বলিত সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ বিরোধী মানব কল্যাণে শান্তির ফতোয়া প্রকাশ করে একথা বলেছেন শোলাকিয়া ঈদগাহ মাঠের প্রধান ও বাংলাদেশ জমিয়তুল ওলামা’র চেয়ারম্যান ইমাম ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ।

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে (ডিআরইউ) শনিবার এই শান্তির ফতোয়া প্রকাশ উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনটির পক্ষে এক লিখিত বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

ইমাম ফরীদ উদ্দীন মাসঊদ বলেন, মুশরিক হত্যার ধুয়া তুলে তারা (জঙ্গিরা) নারী-শিশু ও ধর্মীয় ব্যক্তিকে হত্যা করছেন, মসজিদ, মন্দির ও গির্জায় আক্রমণ করছেন। শরীয়তের দৃষ্টিতে এটা বৈধ নয়। এটি একটি জঘন্য অপরাধ, এটা জাহান্নামের পথ। জঙ্গিবাদীরা তাদের কর্মকাণ্ডকে জিহাদ বলেন, এটা জিহাদ নয়  এটা সন্ত্রাস। এই সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের মধ্যদিয়ে মৃত্যুকে তারা শহিদী মৃত্যু বলতে চান। এভাবে আত্মঘাতী মৃত্যু কখনও শহিদী মৃত্যু হতে পারে না। ইসলাম প্রতিষ্ঠায় জঙ্গিবাদ কোনো পথ নয়। আমাদের নবী-রাসুলেরা প্রেম-ভালোবাসা দিয়ে ইসলাম প্রতিষ্ঠা করেছেন। আমদেরও সেই পথ বেছে নিতে হবে।

তিনি আরও বলেন, ইসলাম শান্তিবাদী, উদার, সহিষ্ণু এবং অসাম্প্রদায়িক ও ভারসাম্যপূর্ণ সামগ্রিক এক জীবনব্যবস্থা। পরিতাপের বিষয়, আজ কতিপয় দুষ্কৃতকারী নিজেদের হীনস্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য মহাগ্রন্থ কোরআন ও হাদীসের অপব্যাখা দিচ্ছে। এছাড়াও তারা ইসলামের নামে বিভিন্ন স্থানে সন্ত্রাস ও আতঙ্ক ছড়াচ্ছে। এতে সরলমনা কেউ কেউ বিভ্রান্তির শিকার হচ্ছেন। এই উগ্রবাদীরা শুধু ইসলাম ও মুসলিমেরই শক্র নয়, তারা মানবতারও শক্র।

শুধু আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী দিয়ে তাদের (জঙ্গিদের) দমন করা যাবে না। তাদের জঙ্গিবাদী চেতনার পরিবর্তন করতে হবে। আর এজন্যই এই ফতোয়া প্রকাশ করা হয়েছে বলেও জানান মাসঊদ।

শোলাকিয়া ঈদগাহ মাঠের প্রধান ইমাম আরও জানান, সারা দেশের ১ লাখ ১ হাজার ৮৫০ জন মুফতি, আলেম-ওলামার স্বাক্ষর সম্বলিত ফতোয়াটি ছোট বই আকারে প্রকাশ করা হয়েছে। পুরুষ মুফতি, আলেম, ওলামা ছাড়াও নারী আলেম রয়েছেন ৯ হাজার ৩২০ জন। গত ৩ জানুয়ারি থেকে ৩১ মে পর্যন্ত ওই স্বাক্ষর সংগ্রহ করা হয়েছে।

বাংলা, ইংরেজি ও আরবি ভাষার তিনটি সংস্করণে ফতোয়াটি প্রকাশ করা হয়েছে।

ফতোয়ার একটি করে কপি রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী কাছে, জাতিসংঘ ‍এবং অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কো-অপারেশনেও (ওআইসি) পাঠানো হবে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।

১ লাখ আলেম, মুফতি ও ইমামের ফতোয়া ও দস্তখত সংগ্রহ কমিটির সদস্য সচিব মাওলানা আবদুর রহীম কাসেমীর সভাপতিত্বে সংবাদ সম্মেলনে আরও বক্তব্য রাখেন, সংগঠনটির সদস্য মাওলানা হোসাইন আহমদ, মাওলানা আইয়ূব আনসারী, আল্লামা আলীম উদ্দীন দুর্লভপুরী, মাওলানা যাকারিয়া নোমান ফয়জী প্রমুখ।


এখানে খুজুন


আরও পড়ুন