আজ শনিবার, ২৬ মে ২০১৮ ইং, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



আবারও বিদেশ সফরে ইউজিসি কর্তা

Published on 12 June 2016 | 3: 57 am

দায়িত্ব গ্রহণের এক বছরের মধ্যে ডজনখানেক বিদেশ সফরের মাধ্যমে সমালোচনার মুখে থাকা বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবদুল মান্নান ফের বিদেশে গেছেন। এবার তার গন্তব্য ভারত। শুক্রবার তিনি ভারতের উদ্দেশ্যে দেশ ছেড়েছেন।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, ইউজিসি কর্তার ভারত সফরের মেয়াদকাল ১০ জুন থেকে ১২ জুন। উদ্দেশ্য সাউথ এশিয়ান ইউনিভার্সিটির একটি কনভেনশনে যোগদান। ইউজিসির একাধিক সূত্রের খবর, অধ্যাপক মান্নান ভারত থেকে দেশে ফেরার পরই জাপান সফরের সম্ভাবনা আছে। সূত্রগুলো আরো জানিয়েছে, জুলাই মাসে ইউজিসি কর্তা যেতে পারেন ইরান সফরে।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক মান্নান ইউজিসি চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পান ২০১৫ সালের ৭ মে। দায়িত্ব গ্রহণের এক বছর পূর্তির আগেই তিনি কমপক্ষে ১১ বার বিদেশ সফরে যান। তার এই বিদেশ সফর প্রীতির কারণে তাকে অনেকে সাবেক একজন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে তুলনা করেন। খোদ ইউজিসির বেশ কয়েকজন কর্মকর্তা এই প্রতিবেদকের সঙ্গে ব্যক্তিগত আলাপচারিতায় তার ঘন ঘন বিদেশ সফরের যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। সম্প্রতি তার বিদেশ সফর নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে। গত ২৪ মে অবশ্য একটি জাতীয় দৈনিকে কলাম লিখে তিনি প্রতিবেদনের জবাব দিয়েছেন। আর এর ঠিক ১৫-১৬ দিনের মাথায় আবারো বেরিয়ে পড়লেন বিদেশ সফরে।

ইউজিসি কর্তা শুধু একাই যে বিশ্ব ভ্রমণ করে বেড়াচ্ছেন তা নয়, প্রায়ই তার সফর সঙ্গী হচ্ছেন প্রতিষ্ঠানটির সদস্য, সচিব ও অন্যান্য কর্মকর্তারা। গত বছর ফিনল্যান্ড সফরে তার সঙ্গী হয়েছিলেন প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তা শাহীন সিরাজ ও নাজমুল ইসলাম। গত ফেব্রুয়ারি মাসে ভারত সফরে তার সঙ্গী হয়েছিলেন প্রতিষ্ঠানটির দুই সদস্য অধ্যাপক ড. দিল আফরোজা বেগম ও ড. এম শাহ নওয়াব আলী। গত বছরের অক্টোবর মাসে ইউজিসি কর্তার দুই সপ্তাহব্যাপী ত্রিদেশীয় সফরে তার নেতৃত্বে অংশ নিয়েছিল ৯ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল। ইউজিসির সব বিদেশ সফরেই যে প্রতষ্ঠিানটির কর্তার অংশগ্রহণ থাকে এমন নয়। অনেক ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তারা কর্তাকে ছাড়াও বিদেশ সফরে গেছেন। সম্প্রতি থাইল্যান্ড সফর করে এসেছেন প্রতিষ্ঠানটির দুই কর্মকর্তা শামসুল আরেফিন ও রেজাউল করিম।

ইউজিসি কর্তা ও কর্মকর্তাদের এসব বিদেশ সফরের লাগাম টানা তো হচ্ছেই না উল্টো এবার নেওয়া হয়েছে একটি মেগা সফর প্রকল্প। জানা গেছে, বিশ্বব্যাংকের কাছ থেকে টাকা ধার করে তৈরি করা ‘উচ্চশিক্ষা মানোন্নয়ন প্রকল্প’ এর অর্থায়নে আগামী অক্টোবর মাসে ইউজিসির ৫৫ জন কর্মকর্তা বিদেশ সফরে যাবেন। সফরের উদ্দেশ্য বৈদেশিক প্রশিক্ষণ। এতে অংশ নেবেন সিনিয়র সহকারী পরিচালক থেকে শুরু করে পরিচালক পর্যন্ত পদ মর্যাদার কর্মকর্তারা। এই সম্ভাব্য মেগা সফর নিয়ে প্রতিষ্ঠানটিতে কাড়াকাড়ি চলছে। ইউজিসির জুনিয়র কর্মকর্তারাও এই সফরের ভাগিদার হওয়ার চেষ্টা করছেন। যুক্তি দেখাচ্ছেন এই সফরে তাদের কর্ম দক্ষতা বাড়বে। কিন্তু সংশ্লিষ্ট সূত্র জানাচ্ছে- তারা সুযোগ পাচ্ছেন না।

উল্লেখ্য উচ্চশিক্ষা মানোন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় ২০১২ সালেও একবার মেগা সফরের আয়োজন হয়েছিল। তখন ইউজিসি কর্মকর্তারা গিয়েছিলেন থাইল্যান্ড ও মালেয়শিয়ায়। ওই বছর ইউজিসির ৯৯ জন প্রথম শ্রেণীর কর্মকর্তার মধ্যে ৮৭ জনই বিদেশ সফর করেছিলেন। সেই সফরে ইউজিসির কিছু কর্মকর্তা বেশ হাস্যকর কিছু কাণ্ড ঘটিয়েছিলেন যা এখনো সফরকারীদের হাসির খোরাক যোগায়।

ইউজিসি কর্তা যদিও কলাম লিখে দাবি করেছেন তিনি বিদেশ সফরে গিয়ে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জল করেছেন। কিন্তু নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ইউজিসির বেশ কয়েকজন কর্মকর্তা বলেছেন, উচ্চশিক্ষা খাতের গুরুত্বপূর্ণ ও সংকটকালীন সময়ে প্রায়ই তাকে দেশে পাওয়া যায় না। তাছাড়া গরীব জনগণের করের টাকায় এ ধরনের ঘন ঘন কিংবা মেগা বিদেশ সফরের আয়োজনে উচ্চশিক্ষা কর্তারা কতটা দক্ষ হচ্ছেন তা নিয়েও প্রশ্ন ওঠেছে। উচ্চশিক্ষা মানোন্নয়নের নামে প্রকল্প নিয়ে কর্মকর্তাদের ভ্রমণ বিলাস যৌক্তিক কিনা তা খতিয়ে দেখা দরকার।

এ সব বিষয়ে কথা বলতে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের সচিব ড. মোহাম্মদ খালেদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, এসব বিষয়ে আমি কোনো মন্তব্য করব না। চেয়ারম্যান স্যারই এসব বিষয়ে ভালো বলতে পারবেন।


Advertisement

আরও পড়ুন