পাঁচ সুপারশপসহ ২৫ প্রতিষ্ঠানকে সাড়ে ৬ লাখ টাকা জরিমানা

 নগরীর পাঁচটি সুপারশপকে জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। নিত্যপ্রয়োজনীয় ভোগ্যপণ্যের অতিরিক্ত দাম ও পচাবাসি পণ্য বিক্রয়ের জন্য এক লক্ষ টাকা করে মোট পাঁচ লক্ষ টাকা জরিমানা করা হয় আগোরা, খুলশী মার্ট, দি গ্রোসার্স, স্বপ্ন ও মীনাবাজারকে। এছাড়া তিন স্থানে অভিযানে ২৫ প্রতিষ্ঠানকে ১ লাখ ৪৬ হাজার ৫শ টাকা জরিমানা করা হয়। গতকাল শুক্রবার দিনব্যাপী এ অভিযান চলে। সুপারশপগুলোতে অভিযান পরিচালনা করেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাহমিলুর রহমান। এসময় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শান্তা রহমান, শেখ নুরুল আলম এবং আইনশৃঙ্খলার সহায়তায় র‌্যাবের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

ম্যাজিস্ট্রেট তাহমিলুর রহমান জানান, সুপারশপগুলোতে তারা ইচ্ছামতো দাম নির্ধারণ করছেন, যা জনসাধারণের ভোগান্তিকে চূড়ান্ত পর্যায়ে নিয়ে গেছে। তিনি জানান, প্রবর্তকের মোড়ের আগোরাতে গিয়ে দেখা যায়, কাঁচামরিচের কেজি ৮০ টাকা, বেগুন ৫৫ টাকা, টমেটো ৬৫ টাকা, খোলা চিনি ৬৩ টাকা। অথচ রিয়াজউদ্দিন বাজারে এগুলোর মূল্য অনেক কম। পচাবাসি মাছমাংসের অস্তিত্ব পাওয়া যায় খুলশী এলাকার দি গ্রোসার্স নামক চেইনশপে। সেখানে কাঁচামরিচের দাম ছিল ৭০ টাকা, টমেটো ৬৫, ছোলা ১০৩ (সরকার নির্ধারিত মূল্য ৭৫ টাকা), চিনি ৬৩ টাকা। খুলশী মার্টে গিয়ে দেখা যায়, ১০৫ টাকায় ছোলা বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া বেগুন, চিনি, রসুন ও টমেটোর দাম ছিল ৫৫, ৬৫, ২৩০, ৬৫ টাকা।

তিনি জানান, মীনাবাজারে খোলা চিনির দাম পাওয়া যায় ৬৮ টাকা। অথচ পাইকারিতে তা ৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এখান থেকে মেয়াদোত্তীর্ণ পচা মধু ও ফেসওয়াশও পাওয়া যায়। এছাড়া গরুর মাংসের দাম ছিল ৬৫০ টাকা, যা মাত্রাতিরিক্ত। গোলপাহাড় এলাকার স্বপ্নতে ১০৫ টাকায় ছোলা আর ৬৮ টাকায় খোলা চিনি বিক্রি করতে দেখা যায়। এখানে কাঁচামরিচের দাম ছিল ৬৫ টাকা। দামের এ ধরনের অসামঞ্জস্যের জন্য এই পাঁচ প্রতিষ্ঠানকে এক লক্ষ টাকা করে মোট পাঁচ লক্ষ টাকা জরিমানা করা হয়।

অন্যদিকে গতকাল নগরীর তিনটি স্থানে পৃথক অভিযানে ১ লাখ ৪৬ হাজার ৫শ টাকা জরিমানা করা হয়। সীপোর্ট বাজারে অভিযান চালিয়ে ৭টি প্রতিষ্ঠানকে অতিরিক্ত মূল্যে ভোগ্যপণ্য বিক্রয়ের দায়ে ৪০ হাজার ৫০০ টাকা জরিমানা করা হয়। সেই সাথে ২৮৫ কেজি সবজি জব্দ করা হয়। অভিযান পরিচালনা করেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. ফোরকান এলাহি অনুপম। সাথে ছিলেন শিক্ষানবিশ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. তৌহিদুল ইসলাম ও সানজিদা সুলতানা।

ফইল্যাতলী বাজারে মেয়াদোত্তীর্ণ কসমেটিক্স, ভোজ্যতেল ও মশার কয়েল রাখার দায়ে ৫টি প্রতিষ্ঠানকে ৬৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয় এবং মেয়াদোত্তীর্ণ এসব পণ্য ধ্বংস করে ফেলা হয়। এ অভিযানের নেতৃত্ব দেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আনিসুল ইসলাম। সাথে ছিলেন শিক্ষানবিশ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইশতিয়াক আহমেদ ও তাহমিদা আক্তার।

বিবিরহাট ও আতুরার ডিপো এলাকার বিভিন্ন মুদি দোকানে অভিযান চালিয়ে মূল্য তালিকা সংরক্ষণ ও প্রদর্শন না করার অপরাধে ১৩টি প্রতিষ্ঠানকে মোট ৪১ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। অভিযানটির নেতৃত্ব দেন জেলা পরিষদের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. সাব্বির রাহমান সানি। সাথে ছিলেন শিক্ষানবিশ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাঈমা ইসলাম।

Mahabubur Rahman Mahabubur Rahman

Leave a Reply

Top
%d bloggers like this:
Web Design BangladeshBangladesh Online Market