অ্যাপেনডিক্সের যন্ত্রণা বলে কিডনি কেটে সাফ

অপারেশন থিয়েটারে (ওটি) যাওয়ার সময়ে তারা জানতেন, অ্যাপেনডিসাইটিসের জন্য অস্ত্রোপচার হবে। অস্ত্রোপচার হতো ঠিকই। তবে জ্ঞান ফেরার পরে বুঝতে পারতেন, অ্যাপেনডিক্স নয়, একটি কিডনিই কেটে নেয়া হয়েছে তাদের!

তারা সবাই গরিব মানুষ। কারও বাড়ি উত্তর ২৪ পরগনা, কারও নদিয়ার বাংলাদেশ সীমান্ত ঘেঁষা গ্রাম-গঞ্জে।

দেশে-বিদেশে কাজ দেওয়ার নাম করে তাদের সঙ্গে ভাব জমাত কিডনি চক্রের দালালরা। কাজ দেয়ার টোপ দিয়ে নিয়ে যাওয়া হতো দেশের নানা শহরে, এমনকি ইন্দোনেশিয়া, বাংলাদেশ, শ্রীলংকার বিভিন্ন শহরে। ভুয়া পাসপোর্ট তৈরি করে দেয়ার কাজও করত এই পাচারকারী দলটি।

প্রশিক্ষণ দেয়ার নামে সেখানে তাদের রেখে দেয়া হতো কিছু দিন। দেয়া হতো বিষ মেশানো খাবার। যা খেয়ে অবধারিত পেটের অসুখ, পেট ব্যথা। তখন তাদের নিয়ে যাওয়া হতো চিকিৎসকের কাছে।

আগে থেকে শিখিয়ে-পড়িয়ে রাখা ও টাকা দিয়ে রাখা সেই চিকিৎসকরা বলতেন, ‘ও কিছু না, অ্যাপেনডিক্সের ব্যথা। অপারেশন করলে ভোগান্তি শেষ।’

পরে দরকার মতো এ-ও বোঝানো হতো, একটি কিডনি দিয়ে দিলেও শরীর সুস্থ থাকে। বিনিময়ে মেলে মোটা টাকা। সেই অপারেশনের নামে কেটে নেয়া কিডনি মোটা টাকায় বিক্রি করা হতো।

আন্তর্জাতিক কিডনি পাচার চক্রের হোতা রাজারহাটের প্রত্যন্ত এলাকা থেকে মঙ্গলবার আটক টি রাজকুমার রাওকে বুধবার বারাসত আদালতে পেশ করে এমন তথ্যই দিয়েছে দিল্লি পুলিশ ও কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা।

কিডনি পাচারের দুনিয়ার এই ‘বেতাজ’ বাদশাকে এ দিন বারাসত আদালতে বিচারক অপূর্বকুমার ঘোষের এজলাসে হাজির করানো হয়।

সূত্র: আনন্দবাজার।

Mahabubur Rahman Mahabubur Rahman

Leave a Reply

Top
%d bloggers like this:
Web Design BangladeshBangladesh Online Market