আজ মঙ্গলবার, ২৪ এপ্রিল ২০১৮ ইং, ১১ বৈশাখ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ



‘৪০ হাজার নারীশ্রমিক ফেরত পাঠিয়েছে সৌদি’

Published on 25 May 2016 | 3: 26 am

সৌদি আরবে কাজের জন্য যাওয়া নারীশ্রমিকদের অর্ধেককে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানো হয়েছে। এ সংখ্যা ৪০ হাজারের মতো হবে। ‘কাজ করতে অনীহা’ প্রকাশসহ নানা কারণে তাদের দেশে ফেরত পাঠানো হয়েছে। মঙ্গলবার আরব নিউজের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

খবরে বলা হয়, সৌদির একটি নিয়োগকারী প্রতিষ্ঠানের স্বত্বাধিকারী হুসেইন আল হারথি স্থানীয় গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, সৌদি আরবে যেসব পরিচারিকা হিসেবে কাজ করতে এসেছিলেন তাদের ৫০ শতাংশকে নিজ দেশে ফেরত পাঠানো হয়েছে। কাজ করতে অস্বীকৃতি জানানো, বাংলাদেশে তাদের প্রশিক্ষণে ঘাটতি, ভাষাগত সমস্যা ও সৌদি আরবের সংস্কৃতির সঙ্গে খাপ খাইয়ে নিতে না পারায় তাদের ফেরত পাঠানো হয়।

তিনি আরো বলেছেন, যারা এসব পরিচারিকাকে নিয়োগ দেন, তাদের তিন মাস সময় দেওয়া হয়। এ সময়ের মধ্যে তারা ওই পরিচারিকার যোগ্যতা যাচাই করেন। ওই সময়ের মধ্যে মালিক যদি ওই পরিচারিকা যথেষ্ট কর্মক্ষম মনে না করেন, তাহলে তাকে ফেরত পাঠানোর জন্য কর্মী সরবরাহকারী অফিসের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। সঙ্গে একটি নোটিশ পাঠিয়ে দেন দূতাবাসে। তাতে ওই পরিচারিকার অযোগ্যতার কারণগুলো বর্ণনা করা থাকে। এরপর ওই পরিচারিকাকে নিয়োগকারী অফিস হস্তান্তর করে দূতাবাসে। সেখান থেকে তাকে দেশে ফেরত পাঠানো হয়।

অন্য আরেকটি নিয়োগকারী প্রতিষ্ঠানের স্বত্বাধিকারী আলী আল ওমারি বলেন, বাংলাদেশে নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরুর পর থেকে দেড় লাখ ভিসা ইস্যু করা হয়েছে।

ওদিকে বাংলাদেশের কনস্যুলেট জেনারেলের একটি সূত্র বলেছে, বিদেশে কাজে পাঠানোর আগে গৃহকর্মীদের প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসনের জন্য বিভিন্ন ট্রেনিং সেন্টার প্রতিষ্ঠা করছে বাংলাদেশ।

দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর ২০১৫ সাল থেকে নতুন করে শ্রমিক নেওয়ার জন্য বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে চুক্তি করে সৌদি আরব। এরপর থেকে নারীশ্রমিক নেওয়ার ব্যাপারেই বেশি আগ্রহ দেখায় সৌদি সরকার। যদিও দেশটিতে গিয়ে নারীরা যৌন হয়রানির মুখেও পড়েন বলে অভিযোগ রয়েছে।


Advertisement

আরও পড়ুন